আখরোট এর উপকারিতা

আখরোট এর নানাবিধ উপকারিতা জেনে নিন!

আখরোট এর উপকারিতা – আখরোটের নাম আপনারা নিশ্চয় শুনে থাকবেন। আখরোট এক প্রকার বাদাম। তবে আখরোট এর উপকারিতা সম্পর্কে আমাদের ধারণা নেই বললেই চলে। তাহলে চলুন আখরোট সম্পর্কে মূল আলোচনায় যাওয়া যাক।

আখরোট কি?

মূলত আখরোট এক প্রকার বাদাম জাতীয় ফল। বিভিন্ন ধরনের ভিটামিন সমৃদ্ধ ফল এটি। এর ভেতরে থাকা নানাবিধ উপাদান মানুষের শরীরে বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে বিশেষ ভাবে কার্যকরী। এটি ফাইবার, এ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এ্যাসিড সমৃদ্ধ একটি পুষ্টিকর খাবার। আখরোট এমন ধরনের বাদাম যার মধ্যে ৬৫℅ চর্বি এবং ১৫% প্রোটিন থাকে। 

উচ্চ ক্যালরি এবং উচ্চ চর্বি যুক্ত খাদ্য হিসেবে আখরোটের একটি বিশেষ পরিচিত রয়েছে। এতসব পুষ্টি উপাদান বিদ্যমান থাকায় নিশ্চয় বুঝতে পারছেন এর উপকারিতা কত! নীচেই আমরা এ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। 

আখরোট এর উপকারিতা

আখরোট পুষ্টিগুণে ভরপুর। তাই বিশেষজ্ঞরা নিয়মিত আখরোট খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। আখরোটে ওমেগা থ্রি-ফ্যাটি অধিক পরিমাণে থাকে। যার ফলে হৃদপিণ্ডের জন্য উপকারী ভুমিকা পালন করে। আখরোট এর উপকারিতা এবং পুষ্টিগুণ অনেক। 

আখরোটের মধ্যে বিদ্যমান উপাদান সমুহ যেমন প্রোটিন, স্বাস্থ্যকর ফ্যাট এবং ফাইবার সব মিলিয়ে আমাদের ক্ষুধা লাগার অনুভূতি দমিয়ে রাখে। ফলে খাদ্যের সাথে অধিক পরিমাণে ক্যালরি গ্রহণের সুযোগ কমে যায়। আখরোট প্রোটিন জাতীয় খাদ্য উপাদানের একটি ভালো উৎস। 

আখরোটে বিদ্যমান পুষ্টি উপাদান আমাদের শরীরে যা অবদান রাখে তা হলো:-

এ্যান্টি-অক্সিডেন্ড:

যা আখরোটের বাদামি আবরণের মধ্যে জমা থাকে। আখরোটে এ্যান্টি-অক্সিডেন্ট প্রচুর পরিমাণে থাকে যা হৃদরোগ এবং ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায় 

ফ্লাভনোয়েড: 

এই এ্যান্টি-অক্সিডেন্ট যা হার্টের সুস্বাস্থ্য থেকে শুরু করে হার্ট অ্যাটাক রোধ করে এবং হার্টের অনেক উন্নতি সাধন করে। 

মেলাটোনিন:  

এটি নিউরো হরমোন জাতীয় এ্যান্টি-অক্সিডেন্ট যা বডি ক্লোক নিয়ন্ত্রন করার ক্ষেত্রে কাজ করে। হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতেও এর ভুমিকা রয়েছে। 

বিভিন্ন গবেষণা থেকে জানা যায়, আমাদের দেহে ফ্রি রেডিক্যালস জনিত কারনে  অক্সিডেটিভ স্ট্রেস দেখা দিলে আখরোট খাওয়ার মাধ্যমে অক্সিডেটিভ স্ট্রেস কমে যায়। 

আখরোটে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এ্যাসিড প্রচুর পরিমানে থাকে। পুষ্টিবিদদের মতে, পুরুষ এবং মহিলার ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এ্যাসিডের দৈনিক চাহিদা যথাক্রমে ১.৬ এবং ১.১ গ্রাম যা আখরোট খাওয়ার মাধ্যমে আমরা পেয়ে থাকি।

গবেষনায় দেখা গেছে, আখরোট খাওয়ার মাধ্যমে হৃদরোগে মৃত্যু ঝুঁকি ১০% হারে কমে যায়। আখরোট আমাদের দেহের সঠিক ওজন নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে ফলে ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি কমে যায়। 

উচ্চ রক্ত চাপের কারণে স্ট্রোক ও হৃদরোগ হয়। দৈনিক এক আউন্স পরিমাণ আখরোট খেলে উচ্চ রক্ত চাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন। 

গবেষণা থেকে জানা যায়, আখরোট খাওয়ার ফলে শরীরের দুর্বলতা দুর করে শারীরিক ভাবে অক্ষম হওয়ার ঝুঁকি ১৩% কমে যায়। 

উপসংহার

উপসংহারে বলা যায়, প্রচলিত খাদ্য দ্রব্যের মধ্যে এ্যান্টি-অক্সিডেন্টের সবচেয়ে ভালো উৎস হল আখরোট। অন্যান্য বাদামের ন্যায় আখরোট এর উপকারিতা ও পুষ্টিগুন অনেক বেশি। এটি একটি স্বাস্থ্যকর খাবার। তবে কোন কোন ক্ষেত্রে যাদের এলার্জিগত সমস্যা আছে তাদের আখরোট এড়িয়ে চলায় ভালো। এলার্জি দূর করার ৯ টি ঘরোয়া উপায়- এবার ঘরোয়া চিরতরে বিদায় নিবে এলার্জি!

>> আপেল সিডার ভিনেগার খাওয়ার নিয়ম জেনে নিন!

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top