ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট

ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট একনজরে দেখে নিন!

ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট – শরীরের বাড়তি ওজন যেনো শরীরের জন্য বাড়তি বোঝা, যা শরীরের জন্য ঝুঁকিপূর্ণও বটে। শরীরের এই অতিরিক্ত ওজন যেমন বাড়িয়ে তোলে বিষন্নতা তেমনি শরীরে বাসা বাঁধে বিভিন্ন রোগবালাই।

ভিডিও তে দেখুনঃ

অনেকেই অতিরিক্ত মেদ টুকু ঝরিয়ে ফেলতে খাওয়া দাওয়া একদমই কমিয়ে ফেলেন এবং অসুস্থ হয়ে পড়েন। কিন্তু যদি সঠিক উপায়ে ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট মেনে চলা হয় খুব সহজেই বাড়তি মেদ ঝরিয়ে ফেলা সম্ভব। 

তবে সেই জন্য দরকার তীব্র মনোবল এবং একটুখানি ধৈর্য্য। তাই ওজন কমানোর ডায়েট  চার্ট   ফলো করার আগে আসুন জেনে নেয়া যাক ডায়েট কি এবং ডায়েট চার্ট কাকে বলে।

ডায়েট কি? 

এই “ডায়েট” শব্দটির সাথে আমাদের সকলের পরিচিতি রয়েছে কিন্তু “ডায়েট” শব্দের সঠিক অর্থ ৯০ভাগ মানুষের অজানা।  ডায়েট শব্দটা সামনে আসলেই ভেবে বসি সেদ্ধ সবজি, তেল ছাড়া বা হালকা তেলে রান্না করা  মাছ-মাংস, হরেক রকম ফল বা সবজির সালাদ।  

ডায়েট মানে আমরা সব সময় মনে করি কম কম খাওয়া, দু’এক বেলা একেবারেই  না খেয়ে থাকা অথবা পছন্দের খাবারগুলো পুরোপুরি এড়িয়ে চলা। আসলে “ডায়েট” মানে এমনটা নয়।  আমাদের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় সুষম পুষ্টিগুণ পরিমিত পরিমানে থাকা খুব জরুরী। খাবারের সুষম উপাদান মূলত ছয়টি-শর্করা,আমিষ,চর্বি,ভিটামিন, মিনারেল ও পানি। এছাড়াও অনেক বিজ্ঞানী ফাইবারকে সুষম খাদ্যের উপাদান হিসেবে বলে থাকেন। 

ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট

সুষম পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ খাবারকে সুষম খাবার বলা হয়। সুতরাং, একজন ব্যক্তির পরিমিত পরিমানে সুষম খাবার সঠিক সময়ে গ্রহণ করার নামই হলো ডায়েট। পুষ্টিবিদদের মতে, ডায়েট হলো আপনার ওজন অনুযায়ী প্রতিদিন যতটুকু ক্যালরি প্রয়োজন ততটুকু পরিমানের সুষম খাবার গ্রহন করা। 

ডায়েট চার্ট কি এবং কেন?

ডায়েট চার্ট হলো আপনার বয়স ও ওজন অনুযায়ী আপনার কি কি খাওয়া উচিত এবং কি কি খাওয়া উচিত নয় তার একটা গোছানো গাইডলাইন। ভূল খাদ্য বাছাইকরনের ফলে আপনার শরীর মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। 

স্থূলতা, ডায়াবেটিস সহ নানাধরনের সমস্যা শরীরে বাসা বাধতে শুরু করে। শরীর সুস্থ রাখতে ডায়েট চার্ট খুব গুরুত্বপূর্ণ। মূলত, ডায়েট চার্ট কি কি খাবার কোন কোন সময়ে খেতে হবে তার সঠিক দিক নির্দেশনা দেয়। ডায়েট চার্ট বলতে আমরা অনেকেই কেবল ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট বুঝি। 

>> লেবু পানি খেয়ে ওজন কমানোর টিপস জেনে নিন!

কিন্তু ডায়েট চার্ট হলো ব্যালেন্সড ডায়েটের বিস্তারিত গাইডলাইন যা মেনে আমরা আমাদের শরীরের অতিরিক্ত মেদ যেমন ঝরাতে পারি তেমনি শরীরের অতিরিক্ত রুগ্ন অবস্থা কাটাতে পারি। সুতরাং, বলা যায় যে ব্যালেন্সড ডায়েটের মাধ্যমে ওজন কমানো বা বাড়ানো সম্ভব। কিন্তু আজকাল ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট এর চাহিদাই সমচেয়ে বেশি। 

ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট

ওজন কমানোর জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো ইচ্ছাশক্তি, ধৈর্য আর একটা পারফেক্ট ডায়েট চার্ট।  একটা স্বাস্থ্যস্মমত ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট আপনার ওজন দ্রুত কমাতে যেমন সাহায্য করে,  সেই সাথে আপানকে রাখে সুস্থ এবং প্রানবন্ত। 

নিচের ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট অনুসরণ করা অনেক সহজ এবং এই চার্ট অনুসরণ করে প্রথম মাসেই বেশ কয়েক কেজি ওজন কমানো সম্ভব। তবে মনে রাখবেন, ওজন কমাতে কোনভাবেই না খেয়ে থাকবেন না, এতে উপকারের থেকে অপকারে বেশি ভুগবেন।

ডায়েট চার্ট


      সকাল
 ৬.৩০-৭.৩০এক গ্লাস হালকা কুসুম গরম লেবু পানি মধু দিয়ে (খালি পেটে)
৮.০০-৯০০২টা রুটিএক বাটি সবজিএকটা ডিম সেদ্ধ ( শুধু সাদা অংশ) 
১১.০০-১১.৩০একটা টাটকা ফল (আপেল, নাশপাতি)
দুপুর ১.০০-২.০০এক কাপ ভাত অথবা দুটো রুটিএক বাটি সবজিএক বাটি ডালসপ্তাহে একদিন মুরগী আর একদিন এক টুকরো মাছটক দই, শসা (খাবার শেষে)
বিকেল৪.০০-৪.৩০গ্রিন টি সাথে স্যুগার ফ্রি বিস্কুট অথবাআধ মুঠো ছোলা ভেজানো অথবা ৩-৪টা খেজুর অথবা একটা কলা
সন্ধ্যা ৭.০০-৭.১৫ডাবের পানি অথবা ১০-১২ টা পেস্তা বাদাম
রাত৮.০০-৯.০০এক কাপ ভাত/ দুটো রুটিএক বাটি সবজিশষা (খাওয়া শেষে)

সবজিঃ ফুলকপি, বাঁধাকপি, ব্রোকলি, লেটুস, পালংশাক, টমেটো,  গাজর, পটল, শিম, করোলা, ঢেড়স, পাটের শাক, লাল শাক ইত্যাদি সবজি ওজন কমানোর জন্য গুরুত্বপূর্ণ। 

 ওজন কমানোর ডায়েট চার্টের উপকারী দিকসমূহ 

  • দ্রুত ওজন কমাতে সাহায্য করেঃ একটি সুষম ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট অনুসরণ করার সবচেয়ে বড় অর্জন হতে পারে নিজের লক্ষ্যে মনোযোগী হয়ে শরীরের বাড়তি মেদ ঝরিয়ে ফেলা। আপনাকে কখন কি খাবার কতটুকু থেকে হবে তার সম্পূর্ণ গাইডলাইন চার্টে থাকায় ওজন দ্রুত কমতে শুরু করে।
  • শরীরে পর্যাপ্ত সুষম পুষ্টি নিশ্চিত করেঃ একটা সঠিক ওজন কমানোর ডায়েট চার্টে সুষম পুষ্টির ভারসাম্য রজায় থাকে যা শরীরকে সুস্থ রাখে ও বিভিন্ন রোগ থেকে রুক্ষা করে।
  • জীবনযাত্রার মান উন্নত করেঃ ডায়েট চার্ট অস্বাস্থ্যকর খাদ্যকে না বলে, তাই শরীর থাকে সুস্থ ও রোগমুক্ত। এছাড়াও,  ডায়েট চার্ট সঠিক খাবারের জন্য সঠিক সময় নির্দেশ করে যা আপনাকে নির্ধারিত সময়ে খাবার অভ্যাস গড়ে তুলতে সাহায্য করে। 

>> পুষ্টিকর খাবারের সম্পূর্ণ তালিকা একনজরে দেখে নিন!

সঠিক খাবার এবং সময়ের সঠিক ব্যবহার আপনার জীবনযাত্রার মান উন্নত করে আপনাকে রাখে মেদহীন সুস্থ এবং সুন্দর। এছাড়াও,  সুস্থ দেহে সুস্থ মন আপনাকে প্রতিদিনের কাজে সক্রিয় এবং আগ্রহী করে তোলে।

ডায়েট সম্পর্কে ভূল ধারণাঃ

ডায়েট সম্পর্কে ভূল ধারণা থেকে অনেকেই ভূল ডায়েট চার্ট অনুসরণ করেন বা না খেয়ে থাকেন যা শরীরের মারাত্মক ক্ষতির কারন হতে পারে।ডায়েট মানে না খেয়ে থাকা নয়, বা শুধু সবজি খেয়ে থাকা নয়। তাই ডায়েট সম্পর্কে সঠিক ধারনা রেখে সঠিক ডায়েট চার্ট ফলো করুন। 

>> পেট কমানোর সহজ ব্যায়াম । মেদ কমবে দ্রুত গতিতে!

শেষ কথাঃ

ওজন কমাতে এবং নিজেকে পারফেক্ট স্লিম রাখতে ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট ফলো করার পাশাপাশি নিয়মিত শরীরচর্চার অভ্যাস গড়ে তুলুন। বিশেষ করে সকাল বেলা ব্যায়াম  আপনার শরীরের বাড়তি মেদ আরো দ্রুত ঝরাতে সাহায্য করবে। অবশ্যই চিনিকে ‘না’ বলুন। চিনি না খাওয়ার অভ্যাস আপনার ওজন কমানোর জার্নিকে আরো সহজ করে তুলবে। তাই আপনার ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট থেকে চিনিকে চিরতরে বিদায় দিন।

শেয়ার করুন-

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top