কমলার জুস রেসিপি এবং উপকারিতা জেনে নিন!

কমলার জুস রেসিপি – পুষ্টিগুণে ভরপুর অনন্য একটি ফল কমলা। তাই বাইরে থেকে এসে ট্যাঙ্ক বা অরোবিট এর বদলে কমলার জুস পান করুন। এটি আপনার পিপাসা মেটানোর পাশাপাশি শরীরে যথেষ্ট ভিটামিন সরবরাহ করবে।

কমলার জুস রেসিপি

আজকে আমরা কমলার জুস রেসিপি নিয়ে আলোচনা করবো। ঘরে বসেই কীভাবে আপনার পরিবারের জন্য ঠান্ডা অরেঞ্জ জুস বানাতে পারবেন তা শিখে নিন এখান থেকেই। 

কমলার জুস রেসিপি 

কমলার জুস তৈরি করা বেশ সহজ। এর জন্য প্রথমে আপনাকে কিছু উপকরণ জোগাড় করতে হবে। 

উপকরণ:

  • কমলা – ২ থেকে ৫টি। (আপনার প্রয়োজন অনুসারে)
  • চিনি – ২ চামচ। 
  • বিট লবণ – ১ চামচ (অত্যাবশ্যক নয়) 
  • লবণ – পরিমাণ মতো। 
  • ঠান্ডা পানি – পরিমাণ মতো। 
  • বরফ কুচি – পরিমাণ মতো৷ 

>> আপেল জুস রেসিপি-তৈরি করুন বাড়িতেই!

কীভাবে বানাবেন

কমলার জুস বানাতে অবশ্যই আপনার একটি ব্লেন্ডার লাগবে। এবং প্রয়োজনীয় উপকরণগুলো হাতের কাছে পেলেই আপনি এটি বানানো শুরু করতে পারেন। 

  • প্রথমে কমলাগুলো ভালোভাবে ধুয়ে নিন। 
  • এরপর খোসা ছাড়িয়ে নিন। 
  • ব্লেন্ডারে পানি (১০০ মিলি) দিয়ে তাতে চিনি, লবণ পরিমাণ মতো দিন। 
  • এরপর কমলার কোয়াগুলো তাতে ঢেলে দিন। 
  • এরপর ব্লেন্ডার অন করুন। 
  • হয়ে গেলে তা ছাকনি দিয়ে ছেকে একটি গ্লাস বা জগে ঢালুন। 
  • এরপর বরফকুচি মিশিয়ে গ্লাসে ঢেলে পরিবেশন করুন। 

কমলার জুসের উপকারিতা

কমলাতে অতিমাত্রায় ভিটামিন সি পাওয়া যায়। কমলার জুসের একটি অন্যতম উপকারিতা হলো এটি তাৎক্ষণিক আপনার মেজাজ ঠান্ডা করে এবং শরীরের এনার্জি বুস্ট করে। 

  • একটি গবেষণায় দেখা গেছে, কমলার জুসে যথেষ্ট এন্টিঅক্সিডেন্ট থাকায় তা হৃদরোগ, ক্যান্সার, ও ডায়াবেটিসের মতো মরণব্যাধি রোগ প্রতিরোধে সহায়তা করে। 
  • এছাড়াও কিডনিতে পাথর জমলে কমলার রস ভীষণ উপকারি। কেননা এটি প্রসাবের পিএইচ বৃদ্ধি করে প্রসাবকে ক্ষারযুক্ত করে এবং কিডনির পাথর প্রতিরোধ করে। 
  •  কমলা আপনার হার্ট ভালো রাখতেও বেশ কার্যকর। এতে বিদ্যমান পেকটিন ফাইবার এবং লিমিনয়েড রক্তের খারাপ কোলেস্টেরল কমিয়ে হার্টকে রাখে সুস্থ। 
  • কমলার জুসে থাকা ভিটামিন সি আপনার ত্বকের র‌্যাডিক্যাল ক্রিয়াকলাপের সাথে লড়াই করে তারুণ্য ধরে রাখে। তাই সুস্থ ত্বকের জন্য অবশ্যই কমলার জুস পান করুন। 
  • কমলার জুস প্রচুর ক্যালরি সমৃদ্ধ ফ্যাটবিহীন একটি উপাদান। যা খেলে আপনি প্রচুর ক্যালরি পাবেন কোনোরকম চর্বি ছাড়া। এতে আপনার ওজন ধরে রাখতেও সাহায্য করবে। 

শেষ কথা

কমলা বেশ সহজলভ্য একটি ফল। তাই প্রতিদিন না হলেও সপ্তাহে অন্তত একদিন কমলার জুস তৈরি করুন। এটি শরীরের নানাবিধ সমস্যা দূর করে আপনার শরীরকে রাখবে চাঙ্গা। যা আপনার কর্মজীবনেও আপনাকে এনার্জেটিক রাখবে। 
সুতরাং, কমলার জুস রেসিপি ভালোমতো আয়ত্ত করে নিজের ও পরিবারের খেয়াল রাখুন।

শেয়ার করুন-

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top