কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা

কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা |লক্ষণ,ঝুঁকি,প্রয়োজনীয় টেস্ট, ঔষধ সহ বিস্তারিত!

কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা – কিডনি হ’ল শিমের আকারের ছোট অঙ্গ যা পেটের পিছনে এবং পাঁজরের নীচে অবস্থিত। আমাদের দুটি কিডনি রয়েছে এবং প্রতিটি মেরুদণ্ডের উভয় পাশে অবস্থিত। প্রতিটি কিডনির আকার ৪ থেকে ৫ ইঞ্চি পর্যন্ত পরিবর্তিত হয় যা প্রায় মুষ্টির আকার।

আজকের নিবন্ধে আমরা কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা , লক্ষণ,ঝুঁকি,প্রয়োজনীয় টেস্ট এবং ঔষধ সহ বিস্তারিত গভীরভাবে পর্যালোচনা করবো। এই নিবন্ধটি আমরা ১০ ভাগে ভাগ করেছি। চলুন বিস্তারিত জেনে নি।

Table of Contents

১) কিডনি কোন কাজ সম্পাদন করে?

কিডনিতে নেফ্রন নামক অনেক ছোট ফিল্টার রয়েছে। এর উদ্দেশ্য রক্ত ​​থেকে বর্জ্য বের করে রক্তকে শুদ্ধ করা এবং বর্জ্যটিকে প্রস্রাবে রূপান্তরিত করা হয়। এই প্রস্রাব কিডনির শ্রোণীতে জমা হয় এবং তারপরে ইউরেটার ও মূত্রাশয় নামক একটি নল দিয়ে যায়। এটি শরীরের তরল এবং শরীরে ইলেক্ট্রোলাইটের স্তরকে ভারসাম্য বজায় রাখতে সহায়তা করে।

এই প্রক্রিয়াটি দিনে কয়েকবার অব্যাহত থাকে। কিডনি হ’ল গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ যা দেহে পিএইচ, ফসফরাস এবং পটাসিয়ামের মাত্রা বজায় রাখতে সহায়তা করে। এগুলি রেনিন নামক এনজাইম তৈরি করে যা রক্তচাপের মাত্রা সামঞ্জস্য করে। এটি এরিথ্রোপয়েটিন নামক একটি রাসায়নিক তৈরি করে লোহিত রক্তকণিকার উত্পাদন পর্যবেক্ষণ করে এবং স্বাস্থ্যকর হাড় এবং দাঁতের জন্য ক্যালসিয়াম শোষণে সহায়তা করে। কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা , লক্ষণ,ঝুঁকি,প্রয়োজনীয় টেস্ট

কিডনি ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে গেলে রক্তের ফিল্টারিং বন্ধ হয়ে যায়। এর ফলে ঘুম কম হওয়া, বমি বমি ভাব, শ্বাসকষ্ট হওয়া, দুর্বলতা এবং গোড়ালি মধ্যে ফোলাভাব ইত্যাদি লক্ষণ দেখা যায়। কিডনি আরও ক্ষতি রোধ করার জন্য চিকিত্সা করা দরকার, যদি তা উপেক্ষা করা হয় তবে এটি গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যা এবং এমনকি মৃত্যুর কারণ হতে পারে।

২) কিডনি রোগের প্রকারভেদ কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা

দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ-এটি কিডনি রোগের সবচেয়ে সাধারণ ধরণ। কিডনি যখন দীর্ঘ ৩ মাস বা তার বেশি সময় ধরে কাজ বন্ধ করে দেয় তখন এটিকে ক্রনিক কিডনি ডিজিস বলা হয়। এটি সাধারণত শরীরে উচ্চ রক্তচাপের কারণে ঘটে। শরীরে রক্তচাপের মাত্রা বজায় রাখা খুব গুরুত্বপূর্ণ কারণ, রক্তচাপ বেড়ে যাওয়া কিডনির গ্লোমোরুলিকে ক্ষতিগ্রস্ত করে যা কিডনিতে ব্যর্থতার দিকে পরিচালিত করে।

যে ক্ষুদ্র রক্তনালীগুলি কিডনিতে রক্ত ​​পরিষ্কার করে তাদের গ্লোমেরুলি বলে। ডায়াবেটিসের কারণে দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগও হতে পারে। উচ্চ চিনির মাত্রা কিডনিতে রক্তনালীগুলিকে মারাত্মক ক্ষতি করে। একবার রোগ নির্ণয়ের পরে রোগীকে ডায়ালাইসিস করানোর পরামর্শ দেওয়া হয়। ডায়ালাইসিস এমন একটি প্রক্রিয়া যা রক্ত ​​থেকে অতিরিক্ত বর্জ্য এবং তরল আহরণে সহায়তা করে। এই প্রক্রিয়া কিডনিকে আরও উন্নত করতে সহায়তা করতে পারে, তবে এটি রোগ নিরাময় করতে পারে না। কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা | লক্ষণ,ঝুঁকি,প্রয়োজনীয় টেস্ট

কিডনি স্টোনস –

রক্ত থেকে শোষিত খনিজ এবং অন্যান্য পদার্থের স্ফটিকের কারণে কিডনিতে পাথর তৈরি হয়। এই কিডনিতে পাথরগুলি কিডনি থেকে মূত্রত্যাগের মাধ্যমে ফেলে দেওয়া হয যখন তারা ছোট এবং ক্ষুদ্র হয়। তবে, পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়ে যায় এবং পাথর বড় হওয়ার সাথে সাথে প্রস্রাবের মধ্য দিয়ে যেতে অসুবিধা হয়। এটি গুরুতর ব্যথা সৃষ্টি করে এবং এই অবস্থার নিরাময়ের জন্য চিকিত্সার যত্নের প্রয়োজন। এই রোগ নিরাময়যোগ্য এবং বড় ধরনের স্বাস্থ্য বিপদের কারণ নয়।

গ্লোমারুলোনফ্রাইটিস – এই একটি শর্ত কিডনি glomeruli নামক অতি ক্ষুদ্র রক্তনালী এর ফোলা কারণে সৃষ্ট হয়। গ্লোমারুলি ফিল্টার রক্ত ​​যা কিডনির মধ্য দিয়ে যায়। গ্লোমারুলোনফ্রাইটিস ড্রাগ, সংক্রমণ বা একটি ডিসঅর্ডার থেকে এলার্জির কারণে ঘটে যা জন্মের পরেই ঘটে। গ্লোমারুলোনফ্রাইটিসের কোনও চিকিত্সার প্রয়োজন হয় না এবং এটি নিজে থেকে নিরাময় হয়।

পলিসিস্টিক কিডনি রোগ – কিডনিতে তরল দ্বারা ভরা অনেকগুলি ছোট সিস্টের বৃদ্ধিকে পলিসিস্টিক কিডনি রোগ বলা হয়। এটি সাধারণত পূর্বসূরীদের কাছ থেকে চলে আসা একটি জিনগত ব্যাধি। কিডনি ফাংশন কিডনি ব্যর্থতার দিকে পরিচালিত করে এই সিস্টগুলি দ্বারা বাধাগ্রস্ত হয়। এটি একটি গুরুতর সমস্যা এবং চিকিত্সার যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। পৃথক সিস্টগুলি কিডনিতেও গঠিত হয় তবে পলিসিস্টিকের তুলনায় এগুলি খুব সাধারণ এবং অ-বিপজ্জনক।

মূত্রনালীর সংক্রমণ – মূত্রনালীর সিস্টেমে সংক্রমণ ঘটে তাকে মূত্রনালীর সংক্রমণও বলা হয় ইউটিআই হিসাবে। মূত্রাশয় এবং মূত্রনালীতে প্রায়শই মূত্রথলির সংক্রমণ শুরু হয়। এই সংক্রমণটি খুব সাধারণ এবং সহজেই নিরাময় করা যায়, তবে যদি চিকিত্সা না করা হয় তবে এটি গুরুতর স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সমস্যা এবং কিডনির ব্যর্থতার কারণ হতে পারে।

কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা

৩) কিডনি রোগের লক্ষণ – কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা

কিডনি রোগগুলি প্রথম পর্যায়ে কোনও লক্ষণ দেখায় না এবং চূড়ান্ত পর্যায়ে এগুলি কেবল স্পষ্ট হয়ে ওঠে। কিডনি রোগের বেশ কয়েকটি সাধারণ লক্ষণ হ’ল-

  • বুকে চাপ ও ব্যথা।
  • খারাপ ঘুম
  • শ্বাস নিতে অসুবিধা
  • শুষ্ক এবং খসখসে ত্বক
  • রাতে ঘন ঘন প্রস্রাব করা
  • চোখের চারদিকে ফোলা
  • ক্ষুধামান্দ্য
  • পায়ের গোড়ালি এবং পা ফোলা
  • পেশী ক্র্যাম্পিং
  • অপর্যাপ্ত ঘুম
  • ক্লান্তি
  • দুর্বল মনোযোগ

৪) কিডনি রোগের ঝুঁকিপূর্ণ কারণগুলি

ডায়াবেটিস – দেহে চিনির মাত্রা বেড়ে যাওয়ার ফলে রক্তনালী এবং কিডনিতে ফিল্টারগুলি ক্ষত হয় যা রক্তকে বিশুদ্ধ করে। এটি শরীরে আরও রক্ত ​​এবং জল ধরে রাখার দিকে পরিচালিত করে এবং আরও বর্জ্য জমা করে। এটি স্নায়ুর ক্ষতি ঘটায় এবং প্রস্রাবকে বাইরে যেতে বাধা দেয় যা কিডনিকে ব্যর্থতার দিকে পরিচালিত করে।

উচ্চ রক্তচাপ – রক্তচাপ বৃদ্ধির ফলে পুরো দেহে রক্তনালীগুলির মারাত্মক ক্ষতি হয়। রক্ত প্রবাহ বৃদ্ধির ফলে কিডনিতে রক্তনালীগুলি দুর্বল হয়ে যায় এবং রক্ত ​​থেকে নষ্ট হওয়া থেকে বিরত থাকে। অতিরিক্ত তরল জমে, রক্তচাপ স্তর উত্থাপন কিডনি গুরুতর ক্ষতি কারণ। উচ্চ রক্তচাপ ওষধের মাধ্যমে এবং ডায়েট, ব্যায়াম এবং স্ট্রেস লেভেলের মতো জীবনযাত্রার পরিবর্তন আনার মাধ্যমে চিকিত্সা করা যেতে পারে।

আরো পড়ুন-হাই প্রেসার কমানোর উপায় কি ? জেনে নিন ৭টি ঘরোয়া সমাধান-

লুপাস – এটি এমন একটি অবস্থা যা প্রতিরোধ ব্যবস্থা কিডনিসহ শরীরের কয়েকটি অংশে আক্রমণ করতে দেয়। কিডনিতে আক্রান্ত অবস্থাকে লুপাস নেফ্রাইটিস বলে। এটি কিডনিতে রক্তনালীগুলির ক্ষতচিহ্ন এবং ফোলা ফোলাভাব দ্বারা রক্তনালীগুলিকে মারাত্মক ক্ষতি করে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এবং রক্তচাপের মাত্রা সংশোধন করার জন্য ওষুধের মাধ্যমে এটি নিরাময় করা যায়।

অ্যানোরেক্সিয়া নার্ভোসা – কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা

এই অবস্থাটি এমন লোকদের মধ্যে পাওয়া যায় যা রক্তাল্পতাযুক্ত এবং যারা তাদের আদর্শ দেহের ওজনের চেয়ে ১৫% কম ওজন পান। এটি শরীরে লবণ এবং পানির অভাবের কারণে ঘটে যা গুরুতর ক্ষতি এবং কিডনিতে ব্যর্থতার দিকে পরিচালিত করে।

একাধিক মেলোমা – ​​একাধিক মেলোমাতে অস্থি মজ্জার শ্বেত রক্ত ​​কণিকার অত্যধিক উত্পাদন স্বাস্থ্যকর রক্তকোষকে ছাপিয়ে যায়। এই ক্যান্সার কোষগুলি কিডনিকে প্রভাবিত করে এবং কিডনির ব্যর্থতার কারণ হিসাবে অস্বাভাবিক প্রোটিন তৈরি করে।

হেমোলিটিক ইউরেমিক সিনড্রোম – কিডনিতে ফিল্টারিং সিস্টেমে রক্তের রক্ত ​​কণিকা পাইল করার কারণে এই অবস্থাটি ঘটে যা কিডনির ব্যর্থতার দিকে পরিচালিত করে। হেমোলিটিক ইউরেমিক সিনড্রোমের সর্বাধিক সাধারণ লক্ষণ হ’ল ৪ থেকে ৫ দিনের জন্য অবিরাম ডায়রিয়া। যদি আপনি বেশ কয়েক দিন ধরে অবিরাম ডায়রিয়ায় প্রস্রাব করতে না পেরে ক্লান্ত বোধ করেন এবং অনুভব করেন তবে চিকিত্সা সহায়তা নিন। আগে শনাক্ত করা গেলে ওষুধ দিয়ে এই অবস্থা নিরাময় করা যায়।

এএনসিএ ভাস্কুলাইটিস – কিডনি এবং অন্যান্য অঙ্গগুলির ক্ষুদ্র রক্তনালীগুলি শরীরের অ্যান্টিবডিগুলির দ্বারা আক্রমণ করা হয় যা জীবাণুগুলির সাথে লড়াই করে রক্ত ​​এবং প্রোটিনগুলি মূত্রের সাথে মিশ্রিত করতে দেয় এবং কিডনিতে ব্যর্থতার দিকে পরিচালিত করে। এই অবস্থাটি নির্দিষ্ট লক্ষণগুলির সাথে চিহ্নিত করা যেতে পারে যেমন জয়েন্ট এবং পেশী ব্যথা, উচ্চ জ্বর, শরীরের ব্যথা, বাদামী বা চা রঙের প্রস্রাব।

প্রস্রাব অবরুদ্ধকরণ – কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা

আপনি যখন প্রস্রাব করতে অসুবিধার মুখোমুখি হন তখন এটির অর্থ হতে পারে প্রস্রাব অবরুদ্ধ। প্রস্রাব অবরুদ্ধ কিডনিতে চাপ এবং সংক্রমণ বাড়িয়ে বেশ কয়েকটি কিডনি রোগের কারণ হতে পারে। কিডনিতে পাথর, প্রোস্টেট ক্যান্সার, কোলন ক্যান্সার, মূত্রাশয় ক্যান্সার, মূত্রনালীতে রক্ত ​​জমাট বাঁধা ইত্যাদির মতো এই অন্তর্নিহিত রোগের কারণেও এই অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে। এটির জন্য মেডিকেল মনোযোগ প্রয়োজন এবং কিছু শর্তে আগে সনাক্ত করা গেলে ওষুধ দিয়ে নিরাময় করা যায়। কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা | লক্ষণ,ঝুঁকি,প্রয়োজনীয় টেস্ট

রক্ত জমাট বেঁধে – থ্রোম্বোটিক থ্রোম্বোসাইটোপেনিক পরপুরা নামে রক্তের ব্যাধিজনিত কারণে কিডনিতে রক্ত ​​জমাট বেঁধে কিডনি মারাত্মক ক্ষতির কারণ হতে পারে। এটি এমন একটি অবস্থা যেখানে হার্ট এবং মস্তিষ্কও আক্রান্ত হয়। যদি এটির প্রাথমিকতম চিকিত্সা না করা হয় তবে এটি গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যার দিকে নিয়ে যেতে পারে। এই রোগের কিছু সাধারণ লক্ষণ হ’ল নাক এবং মাড়ির রক্তপাত, জ্বর, ক্লান্তি, বমিভাব, গুরুতর মাথাব্যথা, বুকে ব্যথা, ক্ষত এবং ডায়রিয়া।

স্ক্লেরোডার্মা – এই জাতীয় রোগ রক্তনালী এবং সংযোজক টিস্যুগুলিকে প্রভাবিত করে এবং খুব কমই পাওয়া যায়। এটি রক্তনালী এবং সংযোজক টিস্যুগুলিকের শক্ত করে তোলে যা প্রস্রাবে প্রোটিন করে কিডনিগুলিকে প্রভাবিত করে। এটি রক্তচাপের মাত্রা বৃদ্ধি করে এবং দ্রুত কিডনিকে ব্যর্থতার দিকে পরিচালিত করে।

পলিসিস্টিক কিডনি রোগ – কিডনিতে তরল দিয়ে ভরা বেশ কয়েকটি ছোট গলুর উপস্থিতি কে পলিসিস্টিক কিডনি রোগ বলে। এটি জেনেটিক্যালি অর্জিত একটি রোগ যাতে কিডনিতে ফোলা বাড়ে। যদি প্রথম দিকে চিকিত্সা না করা হয় তবে এটি কিডনির মারাত্মক ক্ষতির কারণ হতে পারে এবং অবশেষে কিডনিতে ব্যর্থতার কারণ হতে পারে।

৫) কীভাবে আপনার কিডনি সুস্থ রাখবেন

কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা

কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা য় ও স্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রার দিয়ে স্বাস্থ্যকর কিডনি বজায় রাখা যায়। স্বাস্থ্যকর ডায়েট অনুসরণ এবং স্ট্রেস-মুক্ত জীবনযাপন কিডনির কার্যকারিতা উন্নত করতে পারে। আপনার কিডনি সুস্থ রাখার জন্য কয়েকটি টিপস এখানে-

  • এমন খাবার এড়িয়ে চলুন যা কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ায়
  • রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখুন এবং ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হলে তা নিয়ন্ত্রণে সঠিক ওষুধ সেবন করুন।
  • লবণের পরিমাণ কমিয়ে দিন।
  • সুষম খাদ্য গ্রহণ করুন যাতে তাজা ফল এবং শাকসব্জী, কম দুগ্ধজাতীয় পণ্য এবং পুরো শস্য গ্রহণ করা অন্তর্ভুক্ত।
  • ধুমপান ত্যাগ ক্রুন
  • ব্যায়াম করুন নিয়মিত
  • ওভারড্রিঙ্ক করবেন না। অ্যালকোহল সেবন নিয়ন্ত্রণে রাখুন।
  • আপনি যদি স্থূলতায় ভুগছেন তবে ওজন হ্রাস করুন।

৬) কিডনি রোগ নির্ণয়: প্রয়োজনীয় টেস্ট

কিডনি সমস্যার লক্ষণগুলি দেখামাত্রই আপনাকে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে। সমস্যাটি আরও নির্ণয়ের জন্য ডাক্তার আপনাকে একাধিক পরীক্ষার মধ্য দিয়ে রাখবেন। প্রয়োজনে কিডনি রোগের ঔষধ সেবন করতে হবে। কিডনি রোগ নির্ণয়ের জন্য নিচে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়েছে।

গ্লোমেরুয়ালার পরিস্রাবণ হার (জিএফআর) – এটি কিডনি পরিস্রাবণ হার এবং রোগের পর্যায় নির্ধারণের জন্য এর কার্যাদি পর্যবেক্ষণ করতে পরীক্ষা করা হয়।

মূত্র বিশ্লেষণ – ব্যাকটিরিয়া সংক্রমণ, রক্তপাত এবং কিডনির সমস্যার অন্যান্য লক্ষণগুলির জন্য মাইক্রোস্কোপের নীচে মূত্রের নমুনা পর্যবেক্ষণ করা হয়।

কিডনি আল্ট্রাসাউন্ড

কিডনি আল্ট্রাসাউন্ড একটি তদন্তের সাহায্যে কিডনির পরিষ্কার চিত্র দেয় যা শব্দ তরঙ্গের সাহায্যে কিডনির চিত্র তৈরি করতে ত্বকে রাখে। এই চিত্রগুলি কিডনিতে ক্ষত যেমন প্রস্রাবের বাধা, পাথর এবং সিস্টের উপস্থিতি দেখায়।

টমোগ্রাফি (সিটি) স্ক্যান – একটি সিটি স্ক্যান এক্স-রে এর মাধ্যমে অঙ্গগুলির বিভাগীয় ছবি তুলতে সহায়তা করে যা কিডনিতে সমস্যাটির স্পষ্ট বিবরণ দেয়।

কিডনি বায়োপসি – এই পদ্ধতিতে রোগাক্রান্ত কিডনি থেকে টিস্যুর একটি ছোট টুকরো বের করা হয়। প্রাপ্ত নমুনাটি আরও একটি তাত্ক্ষণিকের অধীনে সমস্যার তীব্রতা উপস্থাপনের জন্য অধ্যয়ন করা হয়। আপনি স্থানীয় অ্যানেশেসিয়া দিয়ে দেয়ার পরে এই পদ্ধতিটি অনুসরণ করা হয়।

এমআরআই স্ক্যান – কিডনিটির উচ্চ-রেজোলিউশন চিত্রগুলি একটি স্ক্যানারের মাধ্যমে ধরা পড়ে যা চৌম্বকীয় ক্ষেত্রে রেডিও তরঙ্গকে নির্গত করে। এটি চূড়ান্ত স্পষ্টতার সাথে ডাক্তারকে সমস্যাটি নির্ণয় করতে সহায়তা করে।

রক্তের ক্রিয়েটিনিন পরীক্ষা-রক্তে ক্রিয়েটিনিনের স্তর পরীক্ষা করার জন্য রক্ত ​​বিশ্লেষণ করা হয়। ক্রিয়েটাইন হ’ল ক্রিয়েটাইন নামক পেশীতে উপস্থিত অণুগুলির বর্জ্য পণ্য। রক্তে ক্রিয়েটিনিনের বর্ধিত স্তর ইস্যুর তীব্রতা নির্ণয় করতে সহায়তা করে।

৭) কিডনি রোগের চিকিত্সা

ডায়াবেটিস, কোলেস্টেরল বা উচ্চ রক্তচাপের স্তরের মতো আরও একটি অন্তর্নিহিত সমস্যার কারণে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে কিডনি রোগ হয়। কিডনি রোগগুলি নিরাময় করা সহজ যখন নির্ণয় করা হয় এবং তখন বেঁচে থাকার হার বেশি। চিকিত্সকরা রোগের তীব্রতার উপর নির্ভর করে চিকিত্সা সরবরাহ করেন। এর অর্থ সমস্ত কিডনি রোগের রোগীদের একই চিকিত্সা করা হবে না। কিডনি সমস্যার জন্য কিছু কার্যকর চিকিত্সা পদ্ধতি হ’ল –

অ্যান্টিবায়োটিক – আপনার রক্ত ​​এবং মূত্র পরীক্ষার ফলাফলের উপর নির্ভর করে আপনার ডাক্তার ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য অ্যান্টিবায়োটিকগুলি লিখে দেবেন। একে অ্যান্টিবায়োটিক থেরাপি বলা হয়।

নেফ্রস্টোমি-কিডনিতে অবরুদ্ধ প্রস্রাব নিষ্কাশন করার জন্য একটি পদ্ধতি অনুসরণ করা হয় এবং ব্লকেজ পরিষ্কার করার জন্য আরও প্রাসঙ্গিক চিকিত্সা সরবরাহ করা হয়। এই পদ্ধতিটি কিডনিতে পৌঁছানোর জন্য ত্বকের মাধ্যমে একটি ক্যাথেটার পাস করে করা হয়।

লিথোপ্রিপসি –

এই মেশিন দ্বারা আল্ট্রাসাউন্ড শক ওয়েভ প্রজেক্ট করার জন্য একটি মেশিন দ্বারা সম্পন্ন হয় যা কিডনিতে বড় পাথরকে ছোট ছোট টুকরো টুকরো করে দেয়। এই ছোট ছোট টুকরাগুলি সহজেই পরে প্রস্রাবের মাধ্যমে যেতে পারে।

নেফস্ট্রমি – ক্যান্সার এবং অন্যান্য গুরুতর কিডনি সমস্যায় ভোগা রোগীদের মধ্যে এটি একটি শল্যচিকিত্সা । এই অস্ত্রোপচারের সময় ক্ষতিগ্রস্থ কিডনি পুরোপুরি সরানো হয়।

ডায়ালাইসিস – এটি মেশিনগুলির সাহায্যে রক্তকে বিশুদ্ধ করার একটি পদ্ধতি। কিডনি ব্যর্থতার কাছাকাছি বা সম্পূর্ণরূপে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার সময় এই প্রক্রিয়াটি করা হয়। এটি একটি পুনরাবৃত্তি প্রক্রিয়া যা কয়েক দিন বা সপ্তাহে একবার করা উচিত। আপনি কোনও দাতা খুঁজে না পাওয়া পর্যন্ত এটি প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়। ডায়ালাইসিস দুই ধরণের আছে-

  • হেমোডায়ালাইসিস – এই ধরণের ক্ষেত্রে আপনার শরীর থেকে অপরিষ্কার রক্ত ​​এমন একটি মেশিনে পাম্প করা হয় যা সমস্ত অমেধ্য নিষ্কাশন করতে সহায়তা করে এবং খাঁটি রক্ত দেহে ফিরে যায়। এই পদ্ধতিটি আপনার সুবিধার্থে বাড়িতে বা কোনও হাসপাতালে করা যেতে পারে। পদ্ধতিটি সপ্তাহে তিনবার পুনরাবৃত্তি হয়। এই ডায়ালাইসিসের কয়েকটি সাধারণ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হ’ল পেশী ক্র্যাম্পিং, নিম্ন রক্তচাপ এবং চুলকানি।
  • পেরিটোনিয়াল ডায়ালাইসিস – এই পদ্ধতিটি ক্যাথেটারের মাধ্যমে পেটে ডায়াল্যাসেট নামক বিপুল পরিমাণে তরলকে পেটে প্রবেশ করে পরিচালিত হয়। পেটে তরল পদার্থে পৌঁছানোর জন্য বর্জ্য পণ্যগুলি পেরিটোনিয়াম (পেটের প্রাচীরকে আবরণ করে এমন একটি ঝিল্লি) দিয়ে কিডনির মধ্য দিয়ে যায়। একবার তরল সমস্ত বর্জ্য পণ্য সংগ্রহ করে এটি পরে পেট থেকে বের করে ফেলে দেওয়া হয়।

কিডনি প্রতিস্থাপন – উভয় কিডনি ব্যর্থ হলে এটি করা হয়। কিডনি প্রতিস্থাপন জীবনকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে পারে। এটি জীবিত বা মৃত অঙ্গ দাতার কাছ থেকে স্বাস্থ্যকর কিডনি গ্রহণের মাধ্যমে করা হয়।

৮) কিডনি ব্যর্থতা – কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা

কিডনি রক্ত ​​থেকে অমেধ্য ফিল্টার করার ক্ষমতা হারিয়ে ফেললে কিডনির ব্যর্থতা এমন একটি অবস্থা। এটি প্রায়শই অন্তর্নিহিত কারণে কারণে হয় –

  • বিষাক্ত রাসায়নিক এবং ওষুধের এক্সপোজার
  • মারাত্মক ডিহাইড্রেশন
  • ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, ক্যান্সার ইত্যাদির মতো তীব্র ও দীর্ঘস্থায়ী রোগ
  • কিডনি ট্রমা
কিডনি ব্যর্থতা পাঁচ ধরণের মধ্যে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়, যা-

তীব্র অভ্যন্তরীণ কিডনি ব্যর্থতা – এমন একটি অবস্থা যা আঘাত বা দুর্ঘটনার মতো ট্রমা থেকে সরাসরি কিডনির ক্ষতি করে তাকে তীব্র অভ্যন্তরীণ কিডনি ব্যর্থতা বলে। এই ট্রমা কিডনিতে টক্সিন এবং ইসকেমিয়ার স্তর বাড়ায় এবং এতে অক্সিজেনের প্রবাহ হ্রাস করে কিডনিতে ক্ষতির কারণ।

তীব্র প্রাকস্রাবণ কিডনি ব্যর্থতা – কিডনি পর্যাপ্ত রক্ত ​​প্রবাহের সাথে সরবরাহ না করা হলে তীব্র প্রিন্টাল কিডনি ব্যর্থতা ঘটে। রক্ত থেকে বিষাক্ত পদার্থগুলি দূর করতে কিডনির পর্যাপ্ত রক্ত ​​প্রবাহের প্রয়োজন হয়। রক্তের প্রবাহকে আরও বেশ কয়েকটি অন্তর্নিহিত রোগের কারণে বাধা দেওয়া যেতে পারে যা নির্ণয়ের সময় প্রদর্শিত হবে।

প্রিনেনাল দীর্ঘস্থায়ী কিডনি ব্যর্থতা – যখন কিডনি দীর্ঘ সময়ের জন্য রক্ত ​​সরবরাহ না পায় তারা সঙ্কুচিত হওয়া শুরু করে এবং আরও কাজ করা বন্ধ করে দেয়। এই অবস্থাকে ক্রনিক প্রেরেনাল কিডনি ব্যর্থতা বলা হয়।

অভ্যন্তরীণ দীর্ঘস্থায়ী কিডনি ব্যর্থতা – আন্তঃ কিডনি রোগের কারণে কিডনি যদি দীর্ঘ সময়ের জন্য আক্রান্ত হয় তখন এই অবস্থা হয়। এটি কিডনিতে অক্সিজেনের ঘাটতি এবং গুরুতর রক্তপাতের দিকে পরিচালিত করে। কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা | লক্ষণ,ঝুঁকি,প্রয়োজনীয় টেস্ট

দীর্ঘস্থায়ী- পোস্ট-রেনাল কিডনি ব্যর্থতা – কিডনিতে দীর্ঘ সময়ের জন্য প্রস্রাব অবরুদ্ধ হয়ে গেলে কিডনিতে চাপের মাত্রা বাড়ায় কিডনি ব্যর্থ হওয়ার কারণ।

৯) স্তরকিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা

কিডনি ব্যর্থতার পাঁচটি স্তর বা ধাপ রয়েছে। রোগের লক্ষণ ও তীব্রতা পরবর্তী পর্যায়ে জটিল হয়ে ওঠে।

স্তর- ১ – এই পর্যায়ে, অবস্থাটি গুরুতর নয় এবং লক্ষণগুলি দেখা যায় না। অভ্যাস থেকে স্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রার পরিবর্তন আনার মাধ্যমে ক্ষতি থেকে উদ্ধার করা খুব সহজ।

স্তর – এখনও খুব কম বা কোনও লক্ষণ দেখানো না থাকলে শর্তটি হালকা। এই অবস্থাটি বেশিরভাগ প্রস্রাব পরীক্ষার সময় নির্ণয় করা হয় যেখানে প্রোটিনের মাত্রা বৃদ্ধি প্রস্রাবে চিহ্নিত করা হয়। স্বাস্থ্যকর জীবনধারা পরিবর্তন করে এবং ওষুধের জন্য ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে এই রোগ নিরাময়যোগ্য।

স্তর -৩ – এই পর্যায়ে, কিডনি ৫০% ক্ষতিগ্রস্থ হয় এবং স্পষ্ট লক্ষণ দেখা যায়। এই অবস্থাটিকে আরও ক্ষতি বন্ধ করার জন্য ওষুধের মাধ্যমে চিকিত্সা করা যেতে পারে এবং আপনাকে কিছু স্বাস্থ্যকর জীবনধারা পরিবর্তন আনতে পরামর্শ দেওয়া হবে।

স্তর এই পর্যায়ে কিডনি ব্যর্থতা তীব্র তবে পুরোপুরি কাজ করা বন্ধ করে দেয় না। এই অবস্থার ক্ষতি হ্রাস করতে অবিলম্বে চিকিত্সার যত্ন এবং চিকিত্সার প্রয়োজন। এই পর্যায়ে শর্তটি বিপরীত করা কঠিন।

স্তর – কিডনি সম্পূর্ণ ব্যর্থতার কাছাকাছি বা তারা পুরোপুরি কাজ করা বন্ধ করে দেয়। কিডনি প্রতিস্থাপন না করা পর্যন্ত এই পর্যায়ে বেঁচে থাকার হার অত্যন্ত কঠিন এই পর্যায়ে রোগীরা বেঁচে থাকার জন্য নিয়মিত ডায়ালাইসিস করেন।

১০) কিডনি স্বাস্থ্য সংক্রান্ত প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী:

প্র: ক্রনিক কিডনি ডিজিজ (সিকেডি) দিয়ে আমি আর কতদিন বেঁচে থাকতে পারি?
  • সিকেডির সাথে বেঁচে থাকা আপনার বয়স, অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা এবং আপনি কীভাবে আপনার যত্নে জড়িত তার উপর নির্ভর করে। প্রারম্ভিক সিকেডি আক্রান্ত বেশিরভাগ মানুষের কিডনিতে কখনও ব্যর্থতা থাকে না। অন্যরা কিডনির ব্যর্থতায় পৌঁছে যাবে এবং ডায়ালাইসিস বা কিডনি প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে দশক ধরে বেঁচে থাকতে পারে। কিডনি রোগের জন্য বেঁচে থাকার হার চিকিত্সার পদ্ধতি এবং স্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রার অভ্যাসের উপর নির্ভর করে।
প্র: ডায়েট কিডনির ক্রিয়াকে কীভাবে প্রভাবিত করে?
  • আপনার কিডনির কার্যকারিতা সংরক্ষণের একটি উপায় হ’ল আপনার ডায়েটটি পরিবর্তন করা। সঠিক পুষ্টি কিডনির কাজের চাপ হ্রাস করতে পারে এবং আপনার কিডনি রোগের আরও অগ্রগতি সংরক্ষণ বা বিলম্ব করতে পারে। একটি রেনাল ডায়েটিশিয়ান আপনাকে সাধারণত খাওয়া খাবারগুলির সাথে ভাল পছন্দ করতে এবং আপনার ডায়েটে পরিমিত হওয়ার জন্য খাবারগুলি যুক্ত করার জন্য এবং খাবারগুলিতে পরামর্শ দেওয়ার ক্ষেত্রে সহায়তা করতে পারে। ডায়েটিশিয়ান আপনার স্বাস্থ্যসেবার একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ এবং দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগের সাথে ভালভাবে বাঁচতে আপনাকে সহায়তা করতে পারে।
প্র: ডায়ালাইসিসের প্রয়োজন হলে আমি কী এখনও ভাল জীবন কাটাতে পারি?
  • হ্যাঁ, আপনি ডায়ালাইসিস দিয়ে দীর্ঘ বাঁচতে এবং ভালভাবে বেঁচে থাকতে পারেন। প্রায়শই দেখা যায় যে ডায়ালাইসিস শুরু করার আগে খুব অসুস্থ লোকেরা কয়েক সপ্তাহ বা মাস পরে আরও অনেক ভাল অনুভব করেন। কিডনি ডায়ালাইসিস সম্পর্কে আপনার সমস্ত সন্দেহ মুছে ফেলার জন্য নির্দ্বিধায় চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।
প্র: কিডনি রোগের প্রথম লক্ষণগুলি কী কী?
  • প্রাথমিক পর্যায়ে কয়েকটি লক্ষণ যা আপনার কিডনির রোগ হতে পারে:
    • ক্লান্তি
    • কম ক্ষুধা
    • শীতল (আবহাওয়া গরম থাকলেও)
    • নিঃশ্বাসের দুর্বলতা
    • শুকনো এবং চুলকানিযুক্ত ত্বক
    • গোড়ালি, পা এবং হাত ফোলা
    • অ্যামোনিয়া শ্বাস
    • বেশিবার প্রস্রাব করা
    • রক্তাক্ত বা ফেনা প্রস্রাব
    • পেশী কুঁচকানো বা ক্র্যাম্পিং
প্র: দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগের কারণ কী?
  • সিকেডি সাধারণত দীর্ঘ সময়ের মধ্যে বিকাশ করে। এটি প্রায়শই অন্তর্নিহিত স্বাস্থ্যের অবস্থার কারণে বিকাশ লাভ করে যা কিডনিকে প্রভাবিত করতে পারে। সিকেডি-এর কারণগুলি অন্তর্ভুক্ত করে:
    ১ ডায়াবেটিস : রক্তের সুগার যখন দীর্ঘ সময়ের জন্য খুব বেশি থাকে, এটি কিডনি, হার্ট, রক্তনালীগুলি, স্নায়ু এবং চোখ সহ দেহের অনেক অঙ্গকে ক্ষতি করে।
    ২. উচ্চ রক্তচাপ : উচ্চ বিপি বা হাইপারটেনশন, যদি দীর্ঘকাল ধরে খারাপভাবে নিয়ন্ত্রণ না করা হয় তবে এটি স্ট্রোক, হার্ট অ্যাটাক এবং কিডনির দীর্ঘস্থায়ী রোগের ক্ষেত্রে অন্যতম প্রধান সমস্যা হতে পারে ।
    ৩. গ্লোমারুলোনফ্রাইটিস : এটি এমন একটি রোগের গ্রুপ যা কিডনির ফিল্টারিং ইউনিটগুলিতে প্রদাহ এবং ক্ষতির কারণ হয়ে থাকে।
    ৪. পলিসিস্টিক কিডনি রোগ: এটি একটি জেনেটিক অবস্থা যা কিডনিতে বড় সিস্ট তৈরি করে এবং আশেপাশের টিস্যুগুলিকে ক্ষতি করে।
প্র: ক্রনিক কিডনি ডিজিজ (সিকেডি) সবসময় কিডনিতে ব্যর্থতার দিকে পরিচালিত করে?
  • দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ এমন একটি অবস্থা যা আপনার কিডনিতে ক্ষতি করে এবং কিডনির কার্য সম্পাদন করার ক্ষমতা হ্রাস পায়। যদি সঠিকভাবে চিকিত্সা না করা হয় তবে আপনার রক্তের পরিমাণ উচ্চ মাত্রায় বাড়তে পারে এবং আপনাকে অসুস্থ বোধ করতে পারে। যখন সিকেডি অগ্রসর হয়, চিকিত্সাবিহীনভাবে চিকিত্সা করা না হলে, এটি শেষ পর্যন্ত কিডনিতে ব্যর্থতার কারণ হতে পারে, যার জন্য জীবন বজায় রাখতে ডায়ালাইসিস বা কিডনি প্রতিস্থাপনের প্রয়োজন হয়। এছাড়াও এটি হার্ট এবং রক্তনালী রোগের ঝুঁকি বাড়ায়। কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা | লক্ষণ,ঝুঁকি,প্রয়োজনীয় টেস্ট
প্র: দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগের (সিকেডি) পাঁচটি ধাপ কী?
  • আপনার রক্তের অপ্রয়োজনীয় পণ্য ক্রিয়েটিনিনের জন্য আপনার রক্ত ​​পরীক্ষার উপর ভিত্তি করে আনুমানিক গ্লোমেরুলার ফিল্টারেশন রেট বা ইজিএফআর এটি আপনার কিডনি কতটা ভাল কাজ করছে তা নির্দেশ করে। কিডনি রোগের পর্যায়গুলি ইজিএফআর সংখ্যার উপর ভিত্তি করে।
    পর্যায় ১ সিকেডি: ইজিএফআর ৯০ বা তার বেশি, যার অর্থ আপনার কিডনিগুলি স্বাস্থ্যকর এবং ভালভাবে কাজ করছে
    ২ পর্যায় সিকেডি: ইজিএফআর ৬০ থেকে ৮৯ এর মধ্যে বোঝায় যে আপনার হালকা কিডনিতে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে
    পর্যায় ৩ সি কেডি: ইজিএফআর ৩০ এবং ৫৯ এর মধ্যে রয়েছে যে আপনার কিছুটা ক্ষতি হয়েছে কিডনি এবং তাদের পাশাপাশি কাজ করা হয় না।
    ৪ পর্যায় সিকেডি: ১৫ থেকে ২৯ এর মধ্যে ইজিএফআর যার অর্থ আপনার কিডনিগুলি মাঝারিভাবে বা গুরুতরভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এই পর্যায়টি খুব গুরুত্ব সহকারে নেওয়া উচিত।
    পর্যায় ৫ সিকেডি: ইজিএফআর ১৫ এর চেয়ে কম মানে কিডনিগুলি ব্যর্থতার খুব কাছে চলেছে বা সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে।
প্র: একটি ভাল জিএফআর বজায় রাখতে আমার কী করা উচিত?
  • জিএফআর একটি সমীকরণ যা আপনার কিডনি কতটা ভালভাবে কাজ করছে তা দেখতে আপনার রক্তে আপনার বয়স, বর্ণ, লিঙ্গ এবং ক্রিয়েটিনাইন স্তর ব্যবহার করে। আপনার ইজিএফআর যদি ৬০ এরও কম হয় তবে শীঘ্রই আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন! এই পর্যায়ে, একটি ভাল জীবনযাত্রার জন্য সঠিক ওষুধ এবং কয়েকটি স্বাস্থ্যকর টিপস আপনাকে কিডনি রোগের লড়াইয়ে জয়ী করতে সহায়তা করতে পারে। আপনার কিডনি যথাসম্ভব স্বাস্থ্যকর রাখতে নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি গ্রহণ করতে পারেন:
    • স্বাস্থ্যকর রক্তচাপ বজায় রাখুন
    • ডায়াবেটিস হলে আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করুন
    • আপনার হার্ট এবং ফুসফুসের স্বাস্থ্যের উন্নতি করুন
    • স্বল্প ফ্যাটযুক্ত, কম লবণের ডায়েট অনুসরণ করুন
    • ৩০ মিনিট অনুশীলন করুন (সপ্তাহে কমপক্ষে ৫ দিন)
    • স্বাস্থ্যকর ওজন রাখুন
    • ধূমপান করবেন না বা তামাক ব্যবহার করবেন না
    • আপনার কিডনি রক্ষা করতে পারে এমন ওষুধ সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন। এবং এই আর্টিকেল টি পড়ে উপকৃত হলে অবশ্যই আপনার প্রিয়জন দের সাথে শেয়ার করুন!

***লেখকঃ রাফসান জানি***

ট্যাগঃ কিডনি রোগের লক্ষণ, কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার, কিডনি ভালো রাখার উপায়, কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা, কিডনি রোগীর খাদ্য তালিকা, কিডনি রোগের ঔষধ, কিডনি রোগের ঔষধের নাম, কিডনি রোগের লক্ষণ কি কি, কিডনি রোগের প্রতিকার, কিডনি রোগের ভেষজ চিকিৎসা, কিডনি পাথর গলায় কোন খাবার, কিডনি ডায়ালাইসিস কিভাবে করে, কিডনি ইনফেকশনের লক্ষণ,

শেয়ার করুন-

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top