ক্যাস্টর অয়েল মুখে ব্যবহারের নিয়ম

ক্যাস্টর অয়েল মুখে ব্যবহারের নিয়ম ও এর গুণাগুণ সমূহ জেনে নিন!

ক্যাস্টর অয়েল মুখে ব্যবহারের নিয়ম সম্পর্কে আমরা কে না জানতে চাই! সুন্দর ত্বক পেতে ক্যাস্টর ওয়েল যে কতটা  উপকারী তা কমবেশি আমরা সবাই জানি।  এ নিয়ে কিছু বলবার পূর্বে চলুন জেনে নিই ক্যাস্টর ওয়েল সম্পর্কে কিছু তথ্য।

ক্যাস্টর ওয়েল মুখে ব্যবহারের নিয়ম সম্পর্কে জানার আগে আমাদের জানতে হবে এর গুণাগুন কী কী। এর উপকারিতা সম্পর্কে জানলে তবেই আমরা এটি ব্যবহার করার উদ্দীপনা পাবো। মুলত ক্যাস্টর অয়েল ক্যাস্টর বীন থেকে তৈরি এক প্রকার ভেজিটেবল প্রেসড তেল। এতে রয়েছে ৮৫-৯৫% শতাংশ রিসিনোলিক এসিড যা ত্বকের যত্নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। 

আসল ক্যাস্টর ওয়েল এক ধরনের হালকা হলদে রঙের ভারি তেল যার বিশেষ স্বাদ এবং গন্ধ রয়েছে। তবে বাজারে যে ক্যস্টর ওয়েল পাওয়া যায় সেগুলো রিফাইন করা তেল। সেগুলোর গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন থাকতে পারে। তাই আনরিফাইন্ড করা তেল-ই ব্যবহার করা উত্তম।

ক্যাস্টর অয়েল মুখে ব্যবহারের নিয়ম

ক্যাস্টর অয়েল মুখে ব্যবহারের নিয়ম:

ত্বক উজ্জ্বল এবং সতেজ রাখতে ক্যাস্টর ওয়েল একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। ত্বক গভীর থেকে  ময়েশ্চরাইজ এবং  ডীপ ক্লিনজিং এর ক্ষেত্রেও এর ব্যবহার রয়েছে। এটি ইমিউনিটি ফাংশন উন্নত করে যা ত্বকের ফাইন লাইন এবং রিংকল ও পিম্পল দুর করে। এছাড়াও ত্বক ছড়ে গেলে এই তেল ব্যবহার করলে ভালো উপকার পাবেন। এবার ক্যাস্টর অয়েল কিভাবে ত্বকে ব্যবহার করলে উপকার পাবেন তা নিয়ে বরং আলোচনা করা হোক। 

ব্যবহারবিধি-১: ক্যাস্টর অয়েল মুখে ব্যবহারের নিয়ম

ঠোঁটের যত্বে ক্যাস্টর ওয়েলঃ

ক্যাস্টর অয়েলের ব্যবহারবিধির শুরুতেই আসে ঠোঁট। নরম স্মুথ ঠোঁট আমরা কে না চাই। ক্যাস্টর ওয়েল ঠোঁটকে মসৃণ করে। রাতে ঘুমাবার আগে ঠোঁট ভালোভাবে স্ক্রাব করে কয়েক ফোটা এই ওয়েল লাগিয়ে নিয়ে ঘুমিয়ে পড়ুন। কদিন পরেই পেয়ে যাবেন আপনার আকাঙ্খিত।

ব্যবহারবিধি-২: ক্যাস্টর অয়েল মুখে ব্যবহারের নিয়ম

আইব্রোতে ক্যাস্টর ওয়েলঃ

অনেকের ভ্রূ পাতলা হয়ে থাকে। তারা খুব ঝামেলাই পড়েন সাজগোজের সময় ভ্রূ আঁকা নিয়ে। ক্যাস্টর ওয়েল প্রতিদিন দুই ফোঁটা করে ভ্রূতে লাগাতে পারেন। এতে ভ্রু গাঢ় ও প্রাণবন্ত হবে। এবং সহজেই সবার নজরে পড়বে। তবে ভালো ফলাফল পেতে কয়েক মাস সময় লাগতে পারে। আরো পড়ুনঃ ক্যাস্টর অয়েল চুলে ব্যবহারের নিয়ম সমূহ জেনে নিন!

ব্যবহারবিধি-৩

ডীপ ক্লিনজিং এবং ময়েশ্চারাইজিং: 

প্রথমে মুখটা ভালো সাবান বা ভালো ফেস ওয়াস দিয়ে ভালো ভাবে ধুয়ে নিতে হবে। এরপর কয়েক ফোঁটা ক্যাস্টর ওয়েল এর সাথে কয়েক ফোঁটা ওলিভ ওয়েল ভালো ভাবে মিশিয়ে নেবেন। এই মিশ্রণ টি পুরো মুখে লাগিয়ে হালকা ভাবে ম্যাসেজ করতে হবে। এরপর একটা ছোট তোয়ালে কুসুম গরম পানিতে ডুবিয়ে নিন। এই প্রসেস টা পর পর মোট দুই বার করতে হবে এবং এক্ষেত্রে দুটো তোয়ালে ব্যবহার করতে হবে।

এরপর কুসুম গরম পানি দিয়ে ভালোভাবে পুরো মুখ ধুয়ে নিন। তারপর কয়েক টুকরো বরফ দিয়ে গোটা মুখে সঙ্গে সঙ্গে ঘষে টোনিং করতে হবে কয়েক মিনিট। এভাবে নিয়মিত করলে ত্বক ধীরে ধীরে ময়েশ্চার হয়ে  উঠবে এবং গভীর থেকে ত্বক কে ক্লিন করবে। নিয়মিত এটি করলে ভালো ফলাফল পাবেন। 


আশা করি, প্রবন্ধটি পড়ে ক্যাস্টর অয়েল মুখে ব্যবহারের নিয়ম সম্পর্কে আপনারা জানতে পারলেন।। তবে বাজারের কম দামী ক্যাস্টর ওয়েলে আপনি কতটা উপকার পাবেন তা নিয়ে আমি সন্দিহানও বটে। যেহেতু ত্বকের যত্নে এবং আরও অনেক উপকারে এই ক্যাস্টর ওয়েল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাই এর জন্য আপনি কিছু টাকা ইনভেস্ট করতেই পারেন। এবং এই সিদ্ধান্তটি একান্তই আপনার উপর নির্ভরশীল। 

লেখকঃ আরিফুল আবির

শেয়ার করুন-

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top