ক্রেডিট কার্ড পাওয়ার যোগ্যতা

ক্রেডিট কার্ড পাওয়ার যোগ্যতা এবং ব্যবহারের নিয়ম সহ বিস্তারিত!

ক্রেডিট কার্ড পাওয়ার যোগ্যতা এবং এই কার্ড ব্যবহারের নিয়মকানুন নিয়ে আমরা অনেকেই বেশ দ্বিধাদ্বন্দে থাকি। ক্রেডিট কার্ড সম্পর্কে ধারণা আছে এমন মানুষের সংখ্যা কমই বলা চলে। 

ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে আমরা যেকোনো সময় যেকোনো দোকান বা শপিং মল থেকে নিত্যপ্রয়োজনীয়  জিনিস কিনতে পারি। অনেক সময় দেখা যায় কেনাকাটা করার সময় আমাদের হাতে নগদ অর্থ থাকে

না। এমন অবস্থায় ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে টাকা লেনদেন করা সহজ হয়। ক্রেডিট কার্ড পাওয়ার যোগ্যতা এবং এ সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য আমরা আজকের প্রবন্ধে আলোচনা করবো।

ক্রেডিট কার্ড কি :

আপনার হাতে নগদ টাকা না থাকলে ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে খুব সহজে টাকা লেনদেন করতে পারবেন।

এছাড়াও ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে আপনি নির্দিষ্ট পরিমাণ সময় পর্যন্ত নির্দিষ্ট পরিমাণের অর্থ ব্যয় করতে পারবেন। পরবর্তীতে আপনার ব্যয় করা অর্থ যথাযথ সময়ে ব্যাংকে ফেরত দিয়ে দিতে হবে।

ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের নিয়ম :

সর্ব প্রথম আপনাকে নিশ্চিত হতে হবে যে আপনার ক্রেডিট কার্ড পাওয়ার যোগ্যতা আছে কি নেই। ক্রেডিট কার্ড পাওয়ার যোগ্যতা না থাকলে আপনি এই সুযোগটি উপভোগ করতে পারবেন না।

ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে আপনি আপনার প্রয়োজনীয় পণ্যে যে অর্থ ব্যয় হবে সেটি  ডেবিট কার্ডের মাধ্যমে আপনার ব্যাংক একাউন্ট থেকে কেটে নেয়া হবে । কিন্তু আপনি যদি অতিরিক্ত ব্যয় করে ফেলেন সে ক্ষেত্রে সেটি আপনার জন্য বিপদজনক হতে পারে। আপনি যদি নির্দিষ্ট সময়ে বিল পরিশোধ করতে না পারেন সে ক্ষেত্রে আপনাকে অতিরিক্ত ফি দিতে হবে।

 

ক্রেডিট কার্ড পাওয়ার যোগ্যতা

ক্রেডিট কার্ড কিভাবে বানাবো :

প্রথমেই আপনাকে যাচাই করতে হবে যে আপনার ক্রেডিট কার্ড পাওয়ার যোগ্যতা  আছে কি না। আপনি যদি ক্রেডিট কার্ড পাওয়ার যোগ্যতার সকল ধাপ উত্তীর্ণ করে থাকেন তবে খুব সহজেই আপনি ক্রেডিট কার্ড বানিয়ে নিতে পারবেন। সর্বপ্রথম আপনাকে একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা ব্যাংকে যেতে হবে । সে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা ব্যাংকে ক্রেডিট কার্ড বিভাগের ইনচার্জের সাথে কথা বলতে হবে। আপনার প্রয়োজনীয় তথ্যাবলী যেমন আপনার সোর্স অফ ইনকাম, মাসিক আয় ইত্যাদি জমা দেয়ার পর ক্রেডিট কার্ড বিভাগ থেকে আপনাকে সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া বলে দেয়া হবে।  

কিভাবে অনলাইনে ক্রেডিট কার্ড ফ্রিতে তৈরি করবেন :

আপনার যদি ক্রেডিট কার্ড পাওয়ার যোগ্যতা থেকে থাকে তাহলে আপনি যে ব্যাংকের অধীনে ক্রেডিট কার্ড করতে চান সেই ব্যাংকের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন। ওয়েবসাইটে আপনি খুব সহজে ক্রেডিট কার্ডের অপশন পেয়ে যাবেন। সেখানে আপনার নাম সহ প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে ফরমটি পূরণ করবেন। 

ফরমটি সব তথ্য যাচাই করে  থেকে খুব শীঘ্রই আপনাকে মেইলে জানানো হবে। আপনি যেদিন ক্রেডিট কার্ডের জন্য আবেদন করবেন সেদিন থেকে ১২-১৪ দিন কার্যদিবসের মধ্যে আপনার কার্ডটি তৈরি হয়ে আপনি যেই শাখা থেকে আবেদন করেছেন সেইখানে পৌছে যাবে। কার্ডটি আসার সাথে ব্যাংক থেকে আপনাকে কল দিয়ে জানিয়ে দেয়া হবে। 

বাংলাদেশের প্রায় সকল ব্যাংক থেকেই যোগ্যতা থাকলে আপনি ক্রেডিট কার্ড নিতে পারবেন। নিচে কয়েকটি ব্যাংক থেকে ক্রেডিট কার্ড পাওয়ার যোগ্যতা সম্পর্কে বর্ণনা দেয়া হলো:

সাউথইস্ট ব্যাংক ক্রেডিট কার্ড :

সাউথইস্ট ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড পেতে হলে আপনাকে সর্ব প্রথম সাউথইস্ট ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড পাওয়ার যোগ্যতা  সম্পর্কে পুরো তথ্য জেনে নিতে হবে। সাউথইস্ট ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড নিতে হলে সর্বপ্রথম সাউথইস্ট ব্যাংকে আপনার একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে। ব্যাংক একাউন্ট তৈরি করার সাথে আপনি ডেবিট কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারবেন। ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে আপনি যেকোনো দুটি সুবিধা গ্রহন করতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে সাউথইস্ট ব্যাংকের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ভিজিট করুন। 

যমুনা ব্যাংক ক্রেডিট কার্ড :

যমুনা ব্যাংক গ্রাহকদের জন্য সম্প্রতি নতুন  কন্টাক্টলেস ক্রেডিট কার্ড  চালু করেছে।  এই কার্ডের মাধ্যমে গ্রাহকরা খুব সহজে টাইপিং এর মাধ্যমে অর্থ লেনদেন করতে পারবেন। যমুনা ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড পাওয়ার যোগ্যতা সম্পর্কে জেনে নিয়ে এই ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট তৈরি করে যমুনা ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে যমুনা ব্যাংক এর অফিসিয়াল ওয়েসবসাইট ভিজিট করুন।

আরো পড়ুন: বীমা কত প্রকার ও কি কি? জেনে নিন বীমা সংক্রান্ত প্রশ্ন-উত্তর

ডাচ বাংলা ব্যাংক ক্রেডিট কার্ড :

ডাচ-বাংলা ব্যাংক তাদের গ্রাহকদের জন্য বিভিন্ন রকমের ক্রেডিট কার্ডের সেবা দিয়ে থাকে। এর মধ্যে উল্লেখ্য যোগ্য হল ডিবিবিএলের মাস্টারকার্ড ক্ল্যাসিক ইন্টারন্যাশনাল ক্রেডিট কার্ড, মাস্টারকার্ড ক্ল্যাসিক লোকাল ক্রেডিট কার্ড, মাস্টারকার্ড গোল্ড ইন্টারন্যাশনাল ক্রেডিট কার্ড, মাস্টারকার্ড গোল্ড লোকাল ক্রেডিট কার্ড, মাস্টারকার্ড টাইটেনিয়াম ক্রেডিট কার্ড, ভিসা ক্ল্যাসিক ইন্টারন্যাশনাল ক্রেডিট কার্ড, ভিসা ক্ল্যাসিক লোকাল ক্রেডিট কার্ড,  ভিসা গোল্ড ইন্টারন্যাশনাল ক্রেডিট কার্ড, ভিসা গোল্ড লোকাল ক্রেডিট কার্ড, ভিসা প্ল্যাটিনাম ক্রেডিট কার্ড। বিস্তারিত জানতে ডাচ-বাংলা ব্যাংক এর অফিসিয়াল ওয়েসবসাইট ভিজিট করুন।

>> DBBL Internet Banking সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন!

ট্রাস্ট ব্যাংক ক্রেডিট কার্ড :

ট্রাস্ট ব্যাংকের ‘ট্রাস্ট মানি’ আ্যাপটি দিয়ে গ্রাহক যেকোন সময় এবং যেকোনও জায়গায় টাকা লেনদেন করতে পারবেন। ভিসা সিগনেচার ক্রেডিটকার্ডের গ্রাহকরা বাংলাদেশ ব্যাংকের বিজ্ঞপ্তি অনুসারে, সর্বোচ্চ ক্রেডিট সীমা গ্রহণ করতে পারবে এবং বিশ্বব্যাপী ভিআইপি লাউঞ্জ ব্যবহার সহ আরো অনেক সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে ট্রাস্ট ব্যাংক এর অফিসিয়াল ওয়েসবসাইট ভিজিট করুন।

ক্রেডিট কার্ড নিয়ে আমাদের অনেকের মনেই নানা ধরনের প্রশ্ন থাকে। যেকোনো ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট তৈরি করার সময় অবশ্যই ক্রেডিট কার্ড পাওয়ার যোগ্যতা সম্পর্কে জেনে নিবেন।  

অতএব ক্রেডিট কার্ড সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো। উক্ত ব্যাংকিং সেবাটি আপনাকে বেশকিছু পরিস্থিতি থেকে রক্ষা করবে। এর মাধ্যমে বেশকিছু জায়গায় আপনি যেমন অর্থ পরিশোধ করতে পারবেন ঠিক তেমনই পকেটে নগদ টাকা রাখার ঝামেলা থেকে মুক্ত থাকতে পারবেন। কোনো কারণে যদি এই কার্ডটি হারিয়েও যায় তবে ব্যাংকে যোগাযোগ করে আপনি পূনরায় কার্ডটি ফেরত নিতে পারবেন। 

আশা করি, এই পোস্টর মাধ্যমে আপনাদের মনের সকল প্রশ্ন সমাধান হয়েছে। যদি আরও কোন প্রশ্ন থেকে থাকে তবে অবশ্যই আমাদের কমেন্ট বক্সে জানাবেন। ধন্যবাদ। 

Writer: Wahida Parvin

ট্যাগ: ক্রেডিট কার্ড কি, ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের নিয়ম, ক্রেডিট কার্ড কিভাবে বানাবো, কিভাবে অনলাইনে ক্রেডিট কার্ড ফ্রিতে তৈরি করবেন, ক্রেডিট কার্ড কিভাবে পাওয়া যায়, সাউথইস্ট ব্যাংক ক্রেডিট কার্ড, যমুনা ব্যাংক ক্রেডিট কার্ড, ডাচ বাংলা ব্যাংক ক্রেডিট কার্ড, ডাচ বাংলা ব্যাংক ক্রেডিট কার্ড

শেয়ার করুন-

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top