চুল পড়া বন্ধ করার ডায়েট – চিকিৎসা ও উপায় সমূহ জেনে নিন!

চুল পড়া বন্ধ করার উপায় – চুল পড়া হল একটি সাধারণ সমস্যা যা পুরুষ বা মহিলা সকল কে প্রভাবিত করতে পারে। চুল পড়ার পিছনে অনেকগুলো কারণ থাকতে পারে, যার তথ্য আমরা এই  নিবন্ধে তুলে ধরবো। 

মানুষ চুল পড়া সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে অনেক আধুনিক প্রতিকারও গ্রহণ করেন, এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলো চুলের সমস্যাকে আরও জটিল করে তুলতে পারে। এই কারণেই হেলদি-স্পোর্টসের এই নিবন্ধে আমরা আপনাকে চুল পড়া রোধের প্রতিকারগুলো বলতে যাচ্ছি। এখানে উল্লিখিত ঘরোয়া প্রতিকারগুলো আপনার সমস্যা কিছুটা কমিয়ে আনতে সহায়ক। মনে রাখবেন, এই ঘরোয়া প্রতিকার গুলো চুল পড়ার চিকিৎসা হিসাবে বিবেচনা করা উচিত নয়। সমস্যা যদি গুরুতর হয় তবে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করুন।

Table of Contents

চুল পড়ার কারণ

চুল পড়া বন্ধ করার উপায় জানার আগে আমাদের চুল পড়ার কারণ গুলো জানতে হবে। তবে চুল পড়ার অনেকগুলো কারণ রয়েছে, এর মধ্যে মূল কারণগুলো আমরা নীচে উল্লেখ করছিঃ

জেনেটিক – জেনেটিক ভাবে চুল পড়া ও একটি বড় কারণ। যদি পরিবারের কারও চুল পড়ার সমস্যা আগে থেকে থাকে তবে পরিবারের অন্য কোনও সদস্য এর মুখোমুখি হতে পারেন।

শারীরিক বা মানসিক চাপ – শারীরিক বা মানসিক চাপের কারণে চুল পড়তে পারে। এই ধরনের চুল ক্ষয়কে টেলোজেন ফ্লুরিয়াম বলে। আপনি যখন শ্যাম্পু, চিরুনি বা চুলে আপনার হাত বুলিয়ে রাখেন, তখন প্রচুর চুল মুঠিতে একত্রিত হয়।

শারীরিক বা মানসিক চাপের কারণে চুল পড়ার কারণ নিম্নরূপ –

  • উচ্চ জ্বর বা গুরুতর সংক্রমণ
  • বড় অস্ত্রোপচার, বড় অসুস্থতা
  • তীব্র মানসিক চাপ
  • ওজন কমানোর ডায়েট, বিশেষত যাদের পর্যাপ্ত প্রোটিন নেই।
  • গর্ভনিরোধক ওষুধ বা এন্টিডিপ্রেসেন্টস জাতীয় কিছু ওষুধের কারণে।

চুল পড়ার অন্যান্য কারণ 

  • রক্তাল্পতা
  • জ্বালা পোড়ার কারণে
  • কিছু সংক্রামক রোগ যেমন সিফিলিস (যৌনতার ফলে সৃষ্ট এক ধরনের ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ)
  • অতিরিক্ত শ্যাম্পু করা 
  • হরমোনের পরিবর্তন
  • থাইরয়েড রোগ
  • মাথার ত্বকে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ

চুল পড়ার ঘরোয়া প্রতিকার 

চুল পড়া বন্ধ করার উপায়

নারকেল তেল – চুল পড়া বন্ধ করার উপায়

উপাদান

প্রয়োজন মতো নারকেল তেল।

ব্যবহারের পদ্ধতি
  • রাতে ঘুমানোর আগে চুল এবং মাথার ত্বকে ভালো করে ম্যাসাজ করুন।
  • তার পরের দিন হালকা শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
  • নারকেল তেল সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার ব্যবহার করা যেতে পারে।
কত উপকারী?

নারকেল তেল বহু চুলের পণ্যগুলোতে ব্যবহৃত হয়। নারকেল তেল চুলের ক্ষতি কমাতে কার্যকর হতে পারে। এটি বেশ হালকা এবং চুলে গভীরভাবে পুষ্টি জোগাতে পারে। চুল ধোয়ার আগে বা পরে নারকেল তেলের ব্যবহার চুলের প্রোটিন বজায় রাখতে সহায়তা করে যা চুলের স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে পারে।

এছাড়াও, নারকেল তেল ব্যবহার চুলের অবনতি বা ভাঙার ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে। তাই বলা যায় যে, চুল পড়া বন্ধ করার উপায় এ নারকেল তেল বেশ কার্যকারি।

পেঁয়াজের রস – চুল পড়া বন্ধ করার উপায়

উপাদান
  • একটি পেঁয়াজ
  • একটি তুলোর বল
ব্যবহারের পদ্ধতি
  • পেঁয়াজ পিষে এর রস বের করে নিন।
  • এবার এতে তুলো ডুবিয়ে চুলের গোড়াতে থেকে লাগান।
  • আধা ঘন্টা পরে, ঠান্ডা জলে চুল ধুয়ে পরে শ্যাম্পু করুন।
কত উপকারী?

এনসিবিআই এর (ন্যাশনাল সেন্টার ফর বায়োটেকনোলজি ইনফরমেশন) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক গবেষণা অনুসারে, মাথার ত্বকে কাঁচা পেঁয়াজের রসের ব্যবহার চুলের বৃদ্ধিতে কার্যকর বলে প্রমাণিত হয়েছে। 

ডিম – চুল পড়া বন্ধ করার উপায়

উপাদান
  • একটি ডিম
  • দুই থেকে তিন চামচ বাদাম তেল
ব্যবহারের পদ্ধতি
  • বাদামের তেলে ডিমের সাদা অংশ দিন।
  • এবার এটি আপনার চুলে লাগান।
  • প্রায় আধা ঘন্টা পরে শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।
কত উপকারী?

ডিম চুলকে সুস্থ রাখতে কার্যকর উপাদান হতে পারে। এটি কেবল চুলকে স্বাস্থ্যকর রাখে না বরং চুলের অবনতি বা ভাঙ্গা রোধ করতে পারে।

>> হাঁসের ডিমের উপকারিতা | পুষ্টিগুণ | ত্বকের যত্নে হাঁসের ডিম!

গ্রিন টি – চুল পড়া বন্ধ করার উপায়

উপাদান
  • দুটি গ্রিন টি ব্যাগ
  • দুই থেকে তিন কাপ গরম জল
ব্যবহারের পদ্ধতি
  • দুটি গ্রিন টি  ব্যাগ গরম জলে রাখুন এবং জল ঠান্ডা হওয়ার জন্য অপেক্ষা করুন।
  • টি ব্যাগগুলি বের করার পরে এই জল দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।
  • মাথায় ম্যাসাজ করুন।
কত উপকারী?

চুলের জন্য গ্রিন টির উপকারিতা অনেক। গ্রিন টিতে এপিগালোকটেকিন -৩-গ্যালেট (EGCG) নামে একটি পলিফেনল থাকে। EGCG চুল বৃদ্ধিতে সহায়ক হতে পারে এবং অ্যালোপেসিয়া জন্য উপকারী হতে পারে।

দই – চুল পড়া বন্ধ করার উপায় 

উপাদান
  • এক বাটি দই
  • কিছু মেথি বীজ
ব্যবহারের পদ্ধতি
  • মেথির বীজ পিষে নিন।
  • এবার এর গুঁড়ো দই এর সাথে মেশান।
  • এই মিশ্রণটি চুলে লাগান এবং হাত দিয়ে মাথার তালুতে আলতো করে ম্যাসাজ করুন।
  • ২০ মিনিট পরে চুল হালকা গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন, এবং শ্যাম্পু করে নিন।

>> মেথি খাওয়ার নিয়ম ও উপকারিতা সমূহ জেনে নিন!

কত উপকারী?

দই প্রোবায়োটিকের উত্স। এনসিবিআই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি গবেষণা অনুসারে, প্রোবায়োটিকের ব্যবহার চুলের বৃদ্ধি এবং চুল পড়া রোধে কাজ করতে পারে।

রোজমেরি অয়েল – চুল পড়া বন্ধ করার উপায়

উপাদান
  • রোজমেরি তেল প্রয়োজন হিসাবে
  • ৮ থেকে ১০ ফোটা অলিভ অয়েল বা নারকেল তেল
ব্যবহারের পদ্ধতি
  • রোজমেরি অয়েল এবং অলিভ অয়েল বা নারকেল তেল মেশান।
  • রাতে ঘুমানোর আগে মাথায় এটি প্রয়োগ করুন, পরদিন চুল ধুয়ে নিন।
  • এটি সপ্তাহে এক বা দুবার ব্যবহার করা যেতে পারে।
কত উপকারী?

রোজমেরি অয়েল ব্যবহার চুলের জন্য খুব উপকারী। রোজমেরি অয়েল বা এর পাতার ব্যবহার চুলের বৃদ্ধির জন্য উপকারী হতে পারে। তবে এই বিষয়ে আরও সুনির্দিষ্ট গবেষণা প্রয়োজন।

>> ক্যাস্টর অয়েল কি ? ক্যাস্টর অয়েল চুলে ব্যবহারের নিয়ম ।

অ্যালোভেরা – চুল পড়া বন্ধ করার উপায়

উপাদান
  • অ্যালোভেরা  পাতা
ব্যবহারের পদ্ধতি
  • অ্যালোভেরার পাতা গরম পানিতে সিদ্ধ করে নিন এবং তারপর একটি পেস্ট তৈরি করে নিন।
  • এবার চুল ধুয়ে, পেস্টটি চুলে ভাল করে লাগান।
  • এর পর হাতে মাথার ত্বকে হালকাভাবে ম্যাসাজ করুন।
  • ১৫ মিনিট পরে ঠান্ডা জলে চুল ধুয়ে ফেলুন।
  • এটি সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার প্রয়োগ করা যেতে পারে।
কত উপকারী?

অ্যালোভেরা চুলের পাশাপাশি স্বাস্থ্য এবং ত্বকের জন্য অনেক উপকারী। এটি চুল পড়া এবং চুল বৃদ্ধিতে সহায়ক। তাছাড়া অ্যালোভেরা চুল পড়ার ওষুধ হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে। এটি চুলের অবনতি রোধ করতে পারে এবং চুলকে সুস্থ রাখতে সহায়তা করতে পারে। অ্যালোভেরা অন্যান্য উপাদান যেমন বাদাম বা ক্যাস্টর অয়েলের সাথেও ব্যবহার করা যেতে পারে।

>> এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা ও এর উপকারিতা সহ গুণাগুণ জেনে নিন!

চুল পড়ার ঘরোয়া প্রতিকারের পরে এখন ডায়েটের পালা। খাবারের আইটেম গুলো গ্রহণের ফলে কীভাবে চুল পড়া রোধ করা যায় সে সম্পর্কিত তথ্য নিচে দেয়া হলো।

চুল পড়ার রোধে ডায়েট-

*চুল পড়া রোধ করার ক্ষেত্রে ডায়েটও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ডায়েট সঠিক হলে চুলও স্বাস্থ্যকর হবে। সুতরাং নিবন্ধের এই অংশে, চুল পড়া রোধ করতে কি খাবেন এবং কি  করবেন না সে সম্পর্কে আমরা তথ্য দিচ্ছি।

চুল পড়া রোধ করতে যা খাবেন –  

ডিম – ডিম খাওয়া চুলের জন্য উপকারী হতে পারে। প্রকৃতপক্ষে ডিমে প্রোটিন রয়েছে। প্রোটিনের ঘাটতি জনিত কারণে চুল ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। যদি কেউ ডিম না খায় তবে বাদাম বা মটর জাতীয় প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করতে পারে। ডিমে কেবল প্রোটিন নয়, বায়োটিন থাকে যা চুলের জন্য উপকারী।

>> কাঁচা ডিম খাওয়ার উপকারিতা – নাকি ক্ষতি কোনটি বেশি?

ওমেগা ৩ এবং ৬ – ওমেগা ৩ এবং ৬ এর ব্যবহার চুলের ক্ষতি রোধে উপকারী হতে পারে। ওমেগা ৩ – আখরোট বা কুমড়োর বীজ, ওমেগা ৬ এর জন্য সালমন মাছ খাওয়া যেতে পারে। 

>> কোন মাছে কত প্রোটিন | জেনে নিন প্রোটিন যুক্ত মাছের তালিকা!

আয়রন – আয়রন চুলকে স্বাস্থ্যকর করে তোলে। এক্ষেত্রে আয়রন সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া যেতে পারে।

জিংক জিংক এর অভাব চুলকানির কারণ হতে পারে। জিংক যুক্ত খাবারের মধ্যে মুরগী, বাদাম, ওটমিল, মটর রয়েছে

যা কি খাবেন না –

ভিটামিন এ – ভিটামিন-এ চুলের জন্য উপকারী, তবে এটির অত্যধিক গ্রহণের ফলে চুল ক্ষতি হতে পারে। 

এছাড়াও, নিচে উল্লেখিত খাদ্য এবং পানীয় থেকে নিজেকে দূরে রাখা ভাল হতে পারে, এগুলো চুলের সমস্যাকে জটিল করে তুলতে পারে। তবে, এগুলো কিভাবে চুলকে প্রভাবিত করে সে সম্পর্কিত বৈজ্ঞানিক প্রমাণ পাওয়া যায় না।

  • চিনিযুক্ত পানীয়
  • অ্যালকোহল
  • জাঙ্ক ফুড
  • চা এবং কফি

>> ভিটামিন এ জাতীয় খাবার এবং এর উপকারিতা জেনে নিন!

চুল পড়ার চিকিৎসা – চুল পড়া বন্ধ করার উপায়

চুল পড়ার চিকিৎসা কি হতে পারে তা নিচে দেয়া হলো।

চিকিত্সকরা চুল পড়ার ওষুধে মিনোক্সিডিল প্রয়োগ করার পরামর্শ দিতে পারেন। এটি এক প্রকার লোশন।

  • চুল পড়ার বিষয়টি চুল প্রতিস্থাপনের চিকিৎসার মাধ্যমে করা যায়। এটি মাথার ত্বকের চুল ক্ষতি রোধের একটি কার্যকর উপায় হতে পারে।
  • চুলের সমস্যার উপর নির্ভর করে ডাক্তার আরও কিছু চিকিত্সা বা ওষুধ লিখে দিতে পারেন।

চুল পড়ার ওষুধ ও প্রতিকার ছাড়াও আরও কিছু বিষয় রয়েছে যা জানা প্রয়োজন।

>> চুল পড়া রোধে প্রাকৃতিক উপায় – ১৫টি সেরা টিপস

*চুল পড়া রোধ করার অন্যান্য কয়েকটি উপায়

চুল পড়ার চিকিৎসা এবং চুল পড়ার ঘরোয়া প্রতিকারের পাশাপাশি কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে যত্ন নেওয়া প্রয়োজন।
  • *চুল খুব শক্ত করে বেঁধে রাখবেন না। শক্ত করে বেঁধে রাখলে চুল আরও ভেঙে যেতে পারে।
  • নিয়মিত চিরুনি দিয়ে চুল পরিষ্কার করুন।
  • আপনার চুল কে ক্ষতিকারক রৌদ্র রশ্মি এবং দূষণ থেকে রক্ষা করার জন্য আপনার মাথায় স্কার্ফ বা ক্যাপ পড়ুন।
  • বার বার চুলে হাত দেবেন না।
  • হালকা গরম জলে চুল ধোবেন না।
  • নিয়মিত ব্যায়াম করুন
  • চাপ বা উদ্বেগ থেকে দূরে থাকুন।

শরীরের যেমন যত্নের প্রয়োজন তেমনি চুলের পর্যাপ্ত রক্ষণাবেক্ষণ দরকার। যখনই আপনার মনে প্রশ্ন আসবে যে কিভাবে চুল পড়া বন্ধ করা যায়, তখনই এই নিবন্ধটি খুলুন এবং পড়ুন। 

এমনকি চুল পড়ার ঘরোয়া প্রতিকার অবলম্বন করার পরও যদি কারও চুল ক্রমাগত পতিত হয়, তবে সেই ব্যক্তির মারাত্মক স্বাস্থ্য সমস্যা রয়েছে। চুল পড়া সমস্যার জন্য তার চিকিৎসা করা দরকার। এমন পরিস্থিতিতে চিকিত্সকরা চুলের ক্ষতি হ্রাসের ওষুধ সম্পর্কে রোগীকে পরামর্শ দিতে পারেন। এ ছাড়া চুল পড়ার ঘরোয়া প্রতিকারের পাশাপাশি ডায়েটের ও যত্ন নিতে ভুলবেন না।

শেয়ার করুন:

One thought on “চুল পড়া বন্ধ করার ডায়েট – চিকিৎসা ও উপায় সমূহ জেনে নিন!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *