জিনসেং এর উপকারিতা

জিনসেং কি? এর উপকারিতা সহ বিস্তারিত জেনে নিন!

জিনসেং এর উপকারিতা – সুস্থ, সুন্দর এবং রোগমুক্ত জীবন গড়ে তুলতে কে না চায় ? তাই প্রাচীনকাল থেকেই মানুষ ব্যবহার করে আসছে বিভিন্ন ভেষজ উদ্ভিদ।  বিভিন্ন ধরনের ভেষজের মধ্যে একটি যাদুকরী ভেষজ হলো জিনসেং।

ভিডিও তে জিনসেং এর গুণাগুণ দেখতে এখানে ক্লিক করুন!

জিনসেং এর উপকারিতা তুলনাহীন। এর উপকারিতা জানার আগে চলুন একবার জেনে নেয়া যাক, জিনসেং টা আসলে কি ? 

জিনসেং কী?

মাংসল মূলবিশিষ্ট এক ধরনের বহুবর্ষজীবি উদ্ভিদ হলো জিনসেং। চীন,  উত্তর আমেরিকা, সাইবেরিয়া ও কোরিয়াতে ঠান্ডা জায়গায় জিনসেং জন্মায়। বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জিনসেং বানিজ্যিক ভাবে উৎপাদিত হচ্ছে। জিনসেং এর উপকারিতা অন্যান্য ভেষজ উদ্ভিদের তুলনায় অনেক গুণ বেশি। তাই একে সর্ব রোগের ওষুধ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। 

জিনসেং সাধারণত তিন রংয়ের হয়ে থাকে।  যেমন, সবুজ জিনসেং, রেড জিনসেং ও হোয়াইট জিনসেং। সবুজ জিনসেং কাঁচামাল হিসেবে পাওয়া যায়। রেড জিনসেং প্রসেস করে ১০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা ২১২ ফারেনহাইট এ শুকিয়ে বাজারজাত করা হয়। আর হোয়াইট জিনসেং একটু শুকিয়ে তারপর বাজারজাত করা হয়। আসুন এবার জেনে নিই, জিনসেং এর উপকারিতা সম্পর্কে। 

জিনসেং এর উপকারিতা 

এটি হলো গাছের মূল। অন্যান্য ভেষজ উদ্ভিদের মধ্যে জিনসেং একটি কার্যকরী উপাদান। হরমোন বৃদ্ধি, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি ও শক্তি বর্ধক হিসেবে জিনসেং দারুণ কার্যকরী।

শারীরিক ও মানসিক ক্লান্তি দুর করতে এবং যৌন শক্তি বৃদ্ধিতে এই ভেষজটি দারুণভাবে কার্যকরী। এছাড়াও জিনসেং টিউমার রোধ করে। এটি অক্সিডেটিভ স্ট্রেসের বিরুদ্ধে লড়াই করে ফলে ক্যান্সার কোষের মৃত্যু ঘটে। 

বিভিন্ন পরীক্ষায় দেখা গেছে,  জিনসেং এর মধ্যে উপস্থিত জিনসেনোসাইড গুলি ফুসফুসের ক্যান্সার প্রতিরোধ করে এবং কিডনি, ডিম্বাশয়, পেট, ত্বক এবং জরায়ুর ক্যান্সার রোধ করতে সাহায্য করে। 

জিনসেং পরিপাক ক্ষমতা বৃদ্ধি করে দেহের অতিরিক্ত ওজন কমাতে সাহায্য করে। এটি রক্তে সুগারের মাত্রা কমিয়ে ইনসুলিন সংবেদনশীলতার উন্নতি করে। তাই  যাদের ডায়াবেটিস রয়েছে তাদের জন্য এটি সুস্বাস্থ্যকর। 

>> সাফি ক্যাপসুলের উপকারিতা জেনে নিন!

জিনসেং মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি করতে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে। এটি স্ট্রেস ঝেড়ে  ফেলতে সাহায্য করে। এই ভেষজ এ্যান্টি এজিং হিসেবে কাজ করে থাকে। জিনসেং কোলাজেন বৃদ্ধি করে ত্বক-কে বলিরেখা হতে মুক্ত করে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে। 

এর মধ্যে আছে এ্যান্টি-ইন্ফ্লেমেটরি উপাদান যা জিনসেনোসাইড প্রভাবিত করে। যাদের আর্থারাইটিস বা গাঁটের ব্যথা রয়েছে তাদের জন্য এটি উপকারী। 

এছাড়াও জিনসেং চুলের ফলিকল গুলি কে শক্তিশালী করে চুলের গড়া মজবুত করে এবং চুল পড়া রোধ করে, চুলের গোড়ায় পুষ্টি জোগায় ও চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। জিনসেং সিরোসিস, ফ্যাটি লিভার এবং দীর্ঘস্থায়ী হেপাটাইটিসের মতো সাধারণ লিভারের রোগের চিকিৎসায় উপকারী। 

এক কথায়, জিনসেং এর উপকারিতা অন্যান্য ভেষজ উদ্ভিদের তুলনায় অতুলনীয়। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এই ভেষজ ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।

শেষ কথা 

জিনসেং এর নানাবিধ গুনের জন্য এর জনপ্রিয়তা দিন দিন বেড়েই চলেছে। তাই এটি ব্যবহারে আপনিও লাভবান হবেন। তবে এই ভেষজ ওষুধ ব্যবহারের পূর্বে ডাক্তারের পরামর্শ অবশ্যই নিতে হবে। 

জিনসেং সম্পর্কিত কোনো প্রশ্ন আপনার মনে থেকে থাকলে আমাদের কমেন্ট বক্সে তা জানাতে পারেন। আমরা অতি শীঘ্রই আপনার প্রশ্নের উত্তর নিয়ে হাজির হবো। 

আপনার মনে কোন প্রশ্ন থাকলে এখানে ক্লিক করুন!

1 thought on “জিনসেং কি? এর উপকারিতা সহ বিস্তারিত জেনে নিন!”

  1. বাজারে হোমিওপ্যাথিক দোকানে যে জিনসেং পাওয়া যায়। ঐগুলির কার্যকারিতা কতটুকু। ডায়াবেটিস রোগীরা এ ঔষধ খেতে পারবে কিনা?

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top