তোকমার উপকারিতা

তোকমার ১৪টি উপকারিতা ও খাওয়ার সঠিক নিয়ম জেনে নিন!

তোকমার সাথে কমবশি আমরা সকলেই পরিচিত। তোকমা, কালো রংয়ের ছোট একটি বীজ দানা যা শরবত তৈরিতে কিংবা মিষ্টি জাতীয় পানীয়তে ব্যবহৃত হয়। বহু গুণ রয়েছে এই তোকমার। তাই আজকের নিবন্ধে আলোচনা হবে তোকমা কি, কিভাবে খেতে হয় এবং তোকমার উপকারিতা সম্পর্কে । 

তোকমার উপকারিতা 

কার্যত তোকমার বীজ দানা পুষ্টিগুনে ভরপুর এবং অনেক উপকারী। এতে রয়েছে ভিটামিন সি, প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, তামা, ফ্যাট, ওমেগা থ্রি-ফ্যাটি এসিড, কার্বহাইড্রেট, ম্যাগনেসিয়াম, পটাশিয়াম এবং প্রচুর পরিমাণে ফাইবার। আয়ুর্বেদিক চিকিৎসাই তোকমার বীজ দানা অন্যতম উপাদান। রূপচর্চাতেও তোকমা ব্যবহার করা হয়। চলুন তাহলে তোকমার উপকারিতা গুলি দেখে নেয়া যাক।  

১. শরীর ঠান্ডা রাখতে 

তোকমা দেহের তাপমাত্রা কমিয়ে শরীরকে ঠান্ডা রাখতে সাহায্য করে। এজন্য গরম আবহাওয়ায় মানুষ তোকমা শরবত পান করে থাকেন। তোকমাকে সুস্বাদু করার জন্য এর সাথে মধু, চিনি এমনকি নারকেল দুধ মিশিয়েও খাওয়া যায়। 

২. গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করতে 

গ্যাসট্রিকের সমস্যা দূর করতে তোকমার উপকারিতা রয়েছে। তোকমা বীজ পেটে এসিড নিয়ন্রন করে ফলে পেটের জ্বালা ভাব দূর হয়। তোকমা বীজ পানিতে ভিজিয়ে খেতে হয়। কারণ তোকমা পানিতে পরিপূর্ণ থাকে, যা শরীর থেকে ক্ষতিকর পদার্থ বের করতে সাহায্য করে।

৩. কোষ্ঠকাঠিন্যহজমের সমস্যায় 

তোকমা দানা কোষ্ঠকাঠিন্য ও হজমের সমস্যা দূর করতে খুবই কার্যকর। অল্প পরিমাণে তোকমা দানা সামান্য পানিতে ভিজিয়ে দুধের সঙ্গে মিশিয়ে খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়।  

৪. রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে 

তোকমা বীজ দানা রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে ভালো কোলেস্টেরল উৎপন্ন করে। ফলে রক্তে চর্বির পরিমাণ কমে আসে যা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে। তাই টাইপ-২ ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য তোকমা অত্যন্ত উপকারী। 

৫. কাশি ও সর্দি নিরাময়ে

তোকমা বীজে রয়েছে ঠান্ডা প্রতিরোধী উপাদান। তোকমা বীজ আমাদের দেহে ঠান্ডার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তুলতে সাহায্য করে। তাই ঠান্ডা জনিত বিভিন্ন রোগ যেমন সর্দি, কাশি, জ্বর, হাঁপানি,শ্বাসকষ্ট ইত্যাদি থেকে মুক্তি পেতে নিয়মিত তোকমা বীজ খাওয়া শুরু করুণ।  

৬. চুল ত্বক সুস্থ রাখতে 

ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে তোকমা কার্যকর ভুমিকা পালন করে। তোকমা বীজ গুড়ো করে তার সাথে নারকেল তেল মিশিয়ে ত্বকে লাগালে চর্মরোগ ভালো হয়। এছাড়াও একজিমা ও সোরিয়াসিস নিরাময়ে বেশ উপকারী। তাই সুস্থ চুল ও ত্বকের যত্নে নিয়মিত তোকমা খাওয়া শুরু করুণ। 

৭. রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে

 তোকমা রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। তোকমায় থাকা বিভিন্ন ভিটামিন ও পুষ্টি উপাদান রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে ফলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে। 

৮. ওজন কমাতে 

তোকমা দেহের ওজন কমাতে সাহায্য করে। তোকমা বীজ আঁশ সমৃদ্ধ। তাই বারতি ক্ষুধা মিটিয়ে দীর্ঘক্ষণ পেট পরিপূর্ণ রাখতে সাহায্য করে। তোকমা বীজে থাকা ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিড আমাদের দেহের জন্য অত্যন্ত উপকারী। এর নানা উপাদান রক্তে চর্বি কমাতে সাহায্য করে।  

৯. হৃদরোগ নিরাময়ে

তোকমা বীজ হৃদরোগ নিরাময়ে দারুণ কার্যকরী। তোকমা বীজের তেল হাই লিপিড প্রফাইল এর মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। ফলে হৃদযন্ত্র সুস্থ থাকে। এছাড়াও নিয়মিত তোকমা খাওয়ার ফলে দুশ্চিন্তা মুক্ত হওয়া যায়। 

১০. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তুলতে

তোকমা বীজে রয়েছে উচ্চ মাত্রার ফ্লাভনয়েড, এন্টিঅক্সিডেন্ট এবং ফেনোলিক উপাদান যা রোগ প্রতিরোধে তুলনামূলক ভাবে কার্যকর। এছাড়াও তোকমা ফ্রী রেডিক্যাল ড্যামেজ রক্ষা করতে বেশ উপকারী। তোকমার উপকারিতা বলে শেষ করার মতো নয়। এবার জেনে নিন তোকমা কি ? 

১১. প্রদাহ কমাতে তোকমা

তোকমাতে রয়েছে প্রদাহ বিরোধী উপাদান। শরীরের কোন অংশ ফুলে গেলে অথবা ব্যথা অনুভব হলে তা দূর করতে সাহায্য করে তোকমা। আয়ুর্বেদিকদের মতে, আথ্রাইটিসের সমস্যার জন্য শরীরের কোন অংশ ফুলে গেলে তা সারতে তোকমা কার্যকরী ভুমিকা পালন করে। 

ভিডিওঃ ইসবগুল ও তোকমা দানা খাওয়ার সঠিক নিয়ম জেনে নিন।

তোকমা কি 

মূলত তোকমা গুল্ম জাতীয় এক প্রকার সপুষ্পক উদ্ভিদ। এটি সাধারণত ৩ ফুট লম্বা হয়। ফুল বেগুনী অথবা গোলাপি রঙের গুচ্ছ হয়ে থাকে। কালো রংয়ের ছোট ছোট বীজ তোকমা যা মিষ্টি পানীয় অথবা শরবত এবং মিষ্টি জাতীয় খাবার সাথে মিশিয়ে খেতে হয়। এটি দেখতে চ্যাপ্টা গোলাকার ও কালো রংয়ের। আয়ুর্বেদিক, ইউনানি এবং চাইনা মেডিসিনে তোকমা ব্যবহৃত হয়।

তোকমা খাওয়ার নিয়ম 

তোকমার বীজ দানা আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত পুষ্টিকর এবং উপকারী উপাদান। এর ছোট ছোট কালো বীজ দানা পানিতে ভিজিয়ে রেখে শরবতের সাথে খেতে হয়। 

প্রথমে ১ টেবিল চামচ তোকমা দানা এক গ্লাস পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। তোকমা বীজ সাত থেকে আট ঘন্টা ভিজিয়ে রাখতে হয়। 

তোকমার বীজ গুলো সারারাত পানিতে ভিজে ফুলে উঠবে। এই ফুলে ওঠা পানি তোকমা বীজ সহ সকালে খালি পেটে পান করুণ। এর সাথে মধু মিশিয়েও খেতে পারেন। 

এছাড়াও মিষ্টি জাতীয় খাবারের সাথেও তোকমা বীজ খাওয়া যায়। অনেকে নারকেল দুধের সঙ্গে মিশিয়ে তোকমা পান করেন। 

আপেল খাওয়ার ১৪টি উপকারিতা ও অপকারিতা পুষ্টিগুণ সহ জানুন!

শেষ কথা 

সবশেষে বলা যায়, সুস্বাস্থ্যের জন্য এবং  বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা দূর করতে তোকমার উপকারিতা অতুলনীয়। তোকমার রয়েছে অনেক গুণ। যারা তোকমা গ্রহন করা থেকে দূরে আছেন তারা খুব শীঘ্রই তোকমা কিনে ফেলুন। কারণ তোকমায় থাকা অগনিত পুষ্টি উপাদান থেকে বঞ্চিত থাকা আপনার উচিৎ হবে না।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top