প্রয়োজন ৭ উইকেট

জিততে হলে বাংলাদেশের প্রয়োজন ৭ উইকেট!

দ্বিতীয় ইনিংসে জিম্বাবুয়েকে ৪৭৭ রানের বিশাল লক্ষ্য দিয়েছে টাইগাররা। বাংলাদেশের পক্ষে সাদমান ইসলাম ও নাজমুল হোসেন শান্ত দুজনেই সেঞ্চুরি করে অপরাজিত থাকেন । জিম্বাবুয়ে ব্যাটিং করতে নেমে ৩ উইকেটে ১৪০ রান সংগ্রহ করে চতুর্থ দিন শেষ করেছে।

ব্যাটিং করতে নেমে মাত্র ১৫ রানের মাথায় প্রথম উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে জিম্বাবুয়ে। মিল্টন শুম্বাকে আউট করেন তাসকিন আহমেদ। এরপর ব্রেন্ডন টেইলর নেমেই টি-টোয়েন্টি স্টাইলে ব্যাটিং করতে শুরু করে। অপরপ্রান্তে থাকা টি কাইটানো একপাশ আগলে খেলতে থাকেন। ৮২ বল কোন বাউন্ডারি ছাড়াই খেলেন তিনি, শেষে ৮৩ তম বলে নিজের প্রথম বাউন্ডারি মেরে ৬ রানে পা দেন কাইটানো।

মারমুখী স্টাইলে খেলতে থাকা টেইলরকে আউট করে সাজঘরে ফেরান মেহেদী হাসান মিরাজ। ৭৩ বল খেলে ৯২ রান করেন তিনি। ১০২ বলে ৭ রান করে টেস্ট সুলভ ইনিংস খেলে সাজঘরে ফেরেন কাইটানো। সাকিব আল হাসান তাকে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলে আউট করেন।

ডোনাল্ড তিরিপানোকে সাথে নিয়ে বাকি সময় ভালোই সামলে নেন মেয়ার্স। চতূর্থ দিন শেষে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ৩ উইকেটত হারিয়ে ১৪০ রান। মেয়ার্স ও তিরিপানো যথাক্রমে ৩৩ বলে ১৮ রান এবং ১৩ বলে ৭ রান করে ক্রিজে আছেন।

শেষ দিনে জিততে হলে বাংলাদেশের প্রয়োজন ৭ উইকেটের এবং জিম্বাবুয়ের প্রয়োজন আরও ৩৩৭ রান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর 

টস : বাংলাদেশ

বাংলাদেশ: ৪৬৮/১০ (১ম ইনিংস ১২৬-ওভার)


মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ১৫০*, লিটন দাস ৯৫, তাসকিন আহমেদ ৭৫, মুমিনুল হক ৭০, সাদমান ইসলাম ২৩, মুশফিকুর ১১, সাকিব আল হাসাব ৩, নাজমুল শান্ত ২, সাইফ হাসান ০;
মুজারাবানি ৪/৯৪, তিরিপানো ২/৫৮।

জিম্বাবুয়ে: ২৭৬/১০ (১ম ইনিংস ১১১.৫-ওভার)
কাইটানো ৮৭, ব্রেন্ডন টেইলর ৮১, শুম্বা ৪১, চাকাবভা ৩১*, মেয়ার্স ২৭;
মেহেদি মিরাজ ৫/৮২, সাকিব আল হাসান ৪/৮২।

বাংলাদেশ: ২৮৪/১ (২য় ইনিংস ৬৭.৪ ওভার)
নাজমুল শান্ত ১১৭*, সাদমান ইসলাম ১১৫*, সাইফ হাসান ৪৩;
এনগারাভা ১/৩৬।

জিম্বাবুয়ে: ১৪০/৩ (৪০-ওভার)
ব্রেন্ডন টেইলর ৯২, মেয়ার্স ১৮*, তিরিপানো ৭*, কাইটানো ৭;
সাকিব আল হাসান ১/২৩,  তাসকিন আহমেদ ১/৩৯, মেহেদি মিরাজ ১/৪৫।

জয়ের জন্য বাংলাদেশের শেষ দিনে প্রয়োজন ৭ উইকেট।

শেয়ার করুন-

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top