Alatrol

ALATROL কেন ব্যবহার করবো? এর উপকারিতা ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া!

Alatrol ফার্মাকোলজিকাল সক্রিয় ডোজ স্তরের একটি ঔষধ। এটি অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়ার শুরুতে হিস্টামিনের মধ্যস্থতাকে বাধা দেয়। আহত কোষগুলির স্থানান্তর এবং অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়ার ব্যথাকেও হ্রাস করে। Alatrol ট্যাবলেট একটি শক্তিশালী এন্টিহিস্টামিন।

আজকের লেখনীতে আমরা Alatrol ঔষধ  সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো। 

Alatrol এর উপকারিতা

সবরকম ঔষধ গ্রহণ করার একমাত্র কারণ হলো ঔষধ কর্তৃক নির্দেশিত উপকারিতা। Alatrol ব্যবহারেও আপনি বিশেষ কিছু উপকারিতা পাবেন। চলুন দেখে নিই সেগুলো কী কী। 

  • Alatrol মৌসুমী এবং বহুবর্ষজীবী অ্যালার্জিক রাইনাইটিস সম্পর্কিত উপস্বর্গগুলির উপশমের জন্য ডাক্তার কর্তৃক নির্দেশিত হয়। 
  • এটি মানব দেহের দীর্ঘস্থায়ী ইডিওপ্যাথিক ছত্রাক দূর করে।
  • দেহের অভ্যন্তরের অ্যালার্জেন-প্ররোচিত হাঁপানির জটিল ত্বকের প্রকাশের চিকিৎসায় Alatrol ঔষধ ব্যবহৃত হয়।
  • সবরকমের এলার্জির চিকিৎসায় ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয় Alatrol. 
  • এই ঔষধের এলার্জি বিরোধী কার্যকারিতা ৪-৬ ঘন্টার মধ্যে সর্বোচ্চ মাত্রায় পৌঁছায় এবং ২৪ ঘন্টা পর্যন্ত স্থায়ী হয়। একারণে এটি দৈনিক একক মাত্রায় কার্যকর বা একবারের বেশী গ্রহণ না করলেও চলে।
  • সিজনাল এলার্জিক রাইনাইটিস, পেরিনিয়াল এলার্জিক রাইনাইটিস এবং ক্রনিক ইডিওপ্যাথিক আর্টিকেরিয়ায় ডাক্তার অ্যালাট্রল নির্দেশ করে থাকেন। 
  • Alatrol ট্যাবলেট এ্যালার্জেন-এর ফলে সৃষ্ট এ্যাজমাকে ভালো ভাবে দূর করে। এটি মূলত সিজনাল এবং পেরিনিয়াল এলার্জিক রাইনাইটিস জনিত লক্ষণগুলোর নিরাময়ে নির্দেশিত। 
  • কিছু ক্ষেত্রে অ্যালাট্রল ক্রণিক ইউডিয়প্যাথিক অ্যার্টিক্যারিয়ার ত্বকীয় অজটিল লক্ষণগুলোর নিরাময়ে চুলকানি জনিত এ্যাজমা-এর চিকিৎসায়ও ব্যবহৃত হয়ে থাকে। 

Alatrol ব্যবহারে সতর্কতা

প্রায় সবরকম ঔষধের কম বেশী পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে। অ্যালাট্রল ঔষধের ব্যবহারে যেসকল সতর্কতা অবলম্বন করবেন তা হলো: 

  • গাড়ী ও ভারী মেশিন চালানোর ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। কেননা এই ঔষধ সেবনে ঘুম বা ঝিমানো ভাব আসে। ফলে ঘটতে পারে বড় কোনো দূর্গটনা।
  • অ্যালাট্রলl  গ্রহণ এর পর অতিরিক্ত অ্যালকোহল বা অন্যান্য সিএনএস ডিপ্রেসেন্ট ওষুধ গ্রহণ থেকে বিরত থাকা উচিত।
  • গর্ভবতী মহিলাদের ক্ষেত্রে অতীব প্রয়ােজনীয়তা না থাকলে এই জাতীয় ঔষধ গ্রহণ করা উচিত নয়। এটি মায়ের দুধের সাথে নিঃসৃত হয়ে থাকে তাই স্তন্যদানকারী মায়েদের ক্ষেত্রে ইহা নির্দেশিত নয়।
  • এই ট্যাবলেটে ব্যবহৃত Cetirizine Hydrochloride হল একটি শক্তিশালী H1 রিসেপ্টর বিরোধী রাসায়নিক যৌগ, যা কোন উল্লেখযোগ্য অ্যান্টিকোলিনার্জিক এবং অ্যান্টিসেরোটোনিক প্রভাব ছাড়াই কাজ করে। 

Alatrol ট্যাবলেটের দাম

অ্যালাট্রল ট্যাবলেট খুচরা বাজারে ৩ টাকা প্রতি পিস দামে বিক্রি হয়ে থাকে। এক পাতা (১৫০ পিস) একত্রে নিলে ৪৫০ টাকা পড়ে। পাইকারি দরে এর দাম আরেকটু কম হয়ে থাকে। 

Alatrol এর সেবন বিধি

বয়স এবং অসুস্থতার পরিমাণ বিবেচনায় ডাক্তাররা ঔষধ পেসক্রাইব করে থাকেন। চলুন অ্যালাট্রল সেবনের সাধারণ ধাপগুলো দেখে নিই: 

  • প্রাপ্তবয়স্ক অর্থাৎ ৬ বৎসরের উপরের বাচ্চা এবং বয়ো:বৃদ্ধরা দৈনিক ১টি ট্যাবলেট বা ২ চা-চামচ সিরাপ অথবা ১ চা-চামচ করে দিনে ২ বার গ্রহণ করবেন।
  • ২-৬ বৎসরের বাচ্চাদের ক্ষেত্রে দৈনিক ১ চা-চামচ করে ১ বার বা ১/২ চা-চামচ করে দৈনিক ২ বার খাওয়াতে পারেন ।
  • ৬ মাস থেকে ২ বৎসরের বাচ্চাদের ক্ষেত্রে  দৈনিক ১/২ চা-চামচ করে ১ বার। অথবা ১২-২৩ মাস বয়সের বাচ্চাদের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ মাত্রা ১/২ চা-চামচ; প্রতি ১২ ঘন্টা পরপর ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • তবে অবশ্যই চেষ্টা করবেন সবসময় চিকিৎসকের পরামর্শ মোতাবেক ঔষধ সেবন করতে। কেননা ডাক্তারগণ সবসময় এক ঔষধের সাথে অপর ঔষধের রাসায়নিক বিক্রিয়া সম্পর্কে অবগত হয়ে মেডিসিন পেসক্রাইব করে থাকেন। তাই আপনি যদি একের অধিক ঔষধ গ্রহণ করে থাকেন তবে অবশ্যই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নিবেন।

Alatrol এর অপকারিতা

ট্যাবলেট হিসেবে কিছু ক্ষেত্রে অ্যালাট্রল ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। সবদিক বিবেচনায় এর অপকারিতা গুলো হলো: 

  • এই ট্যাবলেটে সেটিরিজিন ব্যবহারজনিত সাধারন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে। তবে যা খুব বেশি দেখা যায় সেটা হলো ঝিমুনি।
  • এছাড়াও তন্দ্রাভাব হতে পারে। প্রয়োজন হলে একটু ঘুমিয়ে নিবেন।
  • ঘন ঘন মুখ শুকিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই খারাপ অনুভূতি এড়াতে পানি পান করবেন।
  • গ্যাস্ট্রোইনটেস্টিনাল জনিত ব্যাঘাত ঘটতে পারে।
  • অ্যালাট্রল ট্যাবলেট ব্যবহারে অনেক সময় সামান্য মাথাব্যথা ও ঘুমঘুম ভাব হতে পারে।

এই ট্যাবলেটে অপকারিতা যৎসামান্যই। তাই একটু সাবধনতা অবলম্বনেই সমস্যা এড়ানো যেতে পারে। 

Alatrol এর গুরুতর ওভারডোজের প্রতিক্রিয়া

ওভারডোজ গ্রহণ করলে উপসর্গ হিসেবে বিভ্রান্তি, মাথা ঘোরা, ক্লান্তি, মাথাব্যথা, অস্থিরতা, অস্থিরতা, অবসাদ, তন্দ্রা, ডায়রিয়া, কাঁপুনি ইত্যাদি সমস্যা দেখা দেয়। কোনো কোনো সময় প্রস্রাব ধরে রাখার মতো অনুভূতি লক্ষ্য করা যায়। 

তাই সমাধান হিসেবে লক্ষণ অনুযায়ী সহায়ক চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে। অ্যালাট্রল খাওয়ার পরপরই গ্যাস্ট্রিক ল্যাভেজ করা যেতে পারে।

শেষকথা

Alatrol সিনজাল এলার্জিক রাইনাইটিস, পেরিনিয়াল এলার্জিক রাইনাইটিস এবং ক্রনিক ইডিওপ্যাথিক আর্টিকেরিয়ায় প্রয়োজনে চিকিৎসকেরা নির্দেশনা দিয়ে থাকে।

গাড়ী চালানোর সময় অথবা শারীরিক পরিশ্রম হয় এমন কাজে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। অ্যালাট্রল সংরক্ষণে আলো ও তাপ থেকে দূরে শুষ্ক স্থানে রাখুন এবং শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন।

আপনার মনে কোন প্রশ্ন থাকলে এখানে ক্লিক করুন!

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top