filmet 400

FILMET 400 কীসের ঔষধ? এর উপকারিতা ও সেবনবিধি জানুন!

filmet 400 ইমিডাজল জাতীয় একটি ব্যাকটেরিয়া প্রতিরোধী ঔষধ এবং চিকিৎসাক্ষেত্রে এটি প্রোটোজোয়া বিরোধী হিসেবেও কাজ করে। filmet ট্যাবলেট এনারুবিক জীবাণু দ্বারা filmet 5-নাইট্রো গ্রূপটি বিজারিত হয় এবং পরীক্ষণে দেখা যায় যে, এই বিজারিত filmet এনারুবিক জীবাণুর DNA-এর উপর কাজ করে ব্যাকটেরিসাইডাল কার্যকারিতা দেয়। 

আজকের লেখনীতে আমরা Filmet 400 মিঃগ্রাঃ ট্যাবলেটের উপকারিতা, কার্যকারিতা, সেবন বিধিসহ ক্ষতিকর দিকগুলো দেখবো।

filmet 400 এর উপকারিতা

ট্যাবলেট হিসেবে filmet এর অনেক ব্যবহার আছে। এই ট্যাবলেট অনেক সময় আমাশয়ের জন্য খাওয়া হয় আবার পাতলা পায়খানার জন্যও খাওয়া হয়। এমিবিক আমাশয় হলেও এই ঔষুধ খাওয়া যায়।

তবে সাধারণত filmet 400 মিঃগ্রাঃ ঔষধ পাতলা পায়খানার জন্য খায়।

এছাড়াও আরো যেসব অসুখে কার্যকরী তা হলো: 

১. এ্যামিবিয়াসিস, 

২. ট্রাইকোমোনিয়াসিস, 

৩. জিয়ারডিয়াসিস, 

৪. ব্যাকটেরিয়াল ভেজাইনোসিস, 

৫. তীব্র আলসারেটিভ জিনজিভাইটিস,

৬. এ্যানারোবিক সংক্রমণ যেমন সেপটিসেমিয়া, ৭. ব্যাকটেরিমিয়া, 

৮. পেরিটোনাইটিস, 

৯. ব্রেইন এ্যাবসেস,

১০. নেক্রোটাইজিং নিউমোনিয়া, 

১১. অস্টিওমাইয়েলাইটিস, 

১২. পিউরপেরাল সেপসিস,

১৩. পেলভিক এ্যাবসেস, 

১৪. পেলভিক সেলুলাইটিস, 

১৫. পায়ের আলসার

১৬. প্রেসার সোর,

১৭. দাঁতের তীব্র সংক্রমণ, 

১৮. সার্জিকাল প্রোফাইল্যাকসিস এবং 

১৯. লক্ষণযুক্ত তীব্র পেপটিক আলসার।

filmet 400 এর কাজ

এনারুবিক ব্যাকটেরিয়া জনিত বিশেষ করে ব্যাকটেরয়েড ও এনারুবিক স্ট্রেপটোকক্কি অস্ত্রোপচার পরবর্তী সংক্রমণ প্রতিরােধে এই ঔষধ ব্যবহৃত হয়।

তাছাড়াও এনারুবিক জীবাণু দ্বারা সংক্রমিত সেপটিসেমিয়া, ব্যাকটেরেমিয়া, পেরিটোনাইটিস, ব্রেইন এসেস, পেলভিক এসেস, পেলভিক সেলুলাইটিস ও অস্ত্রোপচার পরবর্তী ক্ষতের সংক্রমণের চিকিৎসায় এই ঔষধ সেবন হয়। 

আরো যেসব ক্ষেত্রে কাজ হয়: 

  • ইউরােজেনিটাল পরিচিত।
  • সকল ধরনের এ্যামেবিয়াসিস যেমন ইনটেস্টিনাল, এক্সট্রা-ইনটেস্টিনাল এবং রােগের লক্ষণবিহীন কিন্তু সিস্ট বহনকারী অবস্থায়।
  • জিয়ারডিয়াসিস।
  • প্রবল আলসারেটিভ জিনজিভাইটিস।
  • এনারুবিক জীবাণু দ্বারা সংক্রমিত পায়ের ঘা ও প্রেসার র্সোস।
  • এনারুবিক জীবাণু জনিত দাঁতে তীব্র সংক্রমণ। 
  • এন্টিবায়ােটিক বেশি ব্যবহারজনিত সিউডােমেমব্রেনাস কলাইটিস।

filmet 400; মাত্রা ও সেবনবিধি 

চিকিৎসাক্ষেত্রে এটি প্রােটোজোয়া বিরােধী হিসেবে কাজ করে। এটি সেবন করার পদ্ধতি হলো,

  • ট্রাইকোমােনিয়াসিস; ১০ বৎসরের উর্ধ্বে:
  • দৈনিক ২০০ মিঃগ্রাঃ করে ৩ বার বা ৪০০ মিঃগ্রাঃ করে ২ বার। 
  • চিকিৎসার সময়কাল: ৭ দিন। । 
  • প্রাপ্তবয়স্কের ক্ষেত্রে: 
  • ৮০০ মিঃগ্রাঃ করে প্রতিদিন সকালে এবং ১-২ গ্রাম করে প্রতি রাতে ঘুমানোর আগে। 
  • চিকিৎসার সময়কাল: ২ দিন
  • ২ গ্রাম, একক মাত্রা হিসেবে। 
  • ট্রাইকোমােনিয়াসিস বাচ্চাদের ক্ষেত্রে:  
  • ৭-১০ বৎসর: ১০০ মিঃগ্রাঃ করে দিনে ৩ বার । 
  • ৩-৭ বৎসর: ১০০ মিঃ গ্রাঃ করে দিনে ২ বার।
  • ১-৩ বৎসর: ৫০ মিঃ গ্রাঃ করে দিনে ৩ বার । 

একটি বিষয় সবসময় মাথায় রাখবেন, যেকোনো ঔষধ গ্রহনের পূর্বে অবশ্যই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নিবেন। 

অন্যান্য ঔষধের সাথে মিথস্ক্রিয়া

Filmet সাধারণত এলকোহল, ফিনায়টয়েন, ফেনোবারবিটোন, ফ্লুরোইউরাসিল, ডাইসালফিরাম, লিথিয়াম এবং সিমেটিডিন-এর সাথে যুগপৎ ব্যবহার করলে এর মিথষ্ক্রিয়তা দেখা যায়।

filmet 400 এর অপকারিতা

কার্যত Filmet  ট্যাবলেটের বেশকিছু ক্ষতিকর দিক রয়েছে, ক্ষতিকর বা অপকারি সেসব লক্ষণগুলো হলো: 

  • বমি বমি ভাব, 
  • ধাতব স্বাদ, 
  • জিহ্বার উপরে আবরণ, 
  • ঘুম ঘুম ভাব ও
  • মুত্রনালীতে অস্বস্তি অনুভূত হতে পারে। 

অন্য ওষুধের সাথে প্রতিক্রিয়া হওয়ার সম্ভবনা থাকায় এটি এলকোহল, ডাইকোমারল, ওয়ারফারিন, ফেনিটয়েন ফেনোবারবিটোন, ফ্লুরোইউরাসিল, ডাইসালফিরাম, লিথিয়াম ও সিমেটিডিনের সঙ্গে কোনোভাবেই গ্রহণ করা উচিত নয়।

filmet 400 ব্যবহারে  সতর্কতা

যদি কোন কারণবশত নির্ধারিত সময়কালের অধিক সময় ধরে Filmet ব্যবহার করতে হয়, সেক্ষেত্রে সেবনকারীর রক্ত পরীক্ষা, বিশেষ করে শ্বেত রক্তকনিকার সংখ্যা নিয়মিত পরীক্ষা করা এবং রােগীর শারীরিক ও মানসিক বিরূপ প্রতিক্রিয়া নজরদারিতে রাখতে হবে। 

এই ঔষধটি হেপাটিক এনসেফেলােপ্যাথি রােগীদের সতর্কতার সাথে প্রয়ােগ করা উচিত। রােগীদের সতর্ক করা উচিত যে মেট্রোনিডাজল মূত্রকে ডার্ক বা রং পরিবর্তন করতে পারে।

কিছু বিশেষ ক্ষেত্রে Filmet 400 ওর ব্যবহার 

filmet ট্যাবলেটে থাকা মেট্রোনিডাজলের বিপাক যকৃতে প্রধানত রাসায়নিক বিক্রিয়া দ্বারা হয়ে থাকে। যকৃতের গুরুত্বর সমস্যার ক্ষেত্রে দেহে মেট্রোনিডাজলের অপসারণে বড় ধরণের অবণতি ঘটতে পারে। যেসকল রােগীদের হেপাটিক এন্সেফেলােপ্যাথি আছে তাদের ক্ষেত্রে মেট্রোনিডাজল ঔষধ পুঁজিভূত হয়। যার ফলাফলস্বরূপ রক্তে এর মাত্রা বেড়ে যাওয়ার কারণে এন্সেফেলােপ্যাথির লক্ষণগুলো দেখা দিতে পারে।

হেপাটিক এক্সেফেলােপ্যাথির রােগীদেও ক্ষেত্রে tufnil এর মেট্রোনিডাজল সতর্কতার সাথে প্রয়ােগ করতে হবে। দৈনিক মাত্রা এক তৃতীয়াংশের কমিয়ে নিয়ে এসে দিনে একবার প্রয়ােগ করতে হবে। মেট্রোনিডাজলের কারণে প্রস্রাব গাঢ় বর্ণের হতে পারে এই ব্যপারে রােগীকে সতর্ক করতে হবে।

কিডনি ফেইলিওর হওয়ার ক্ষেত্রে মেট্রোনিডাজলের এলিমিনেশন হাফ-লাইফ অপরিবর্তিত থাকে। তাই এর মাত্রা পরিবর্তনের কোন প্রয়ােজন হয় না। যদিও এই রােগীদের মেট্রোনিডাজলের মেটাবােলাইট সমুহ শরীরে জমা থাকে। তবে এখনও এর কোন ক্লিনিক্যাল তাৎপর্য পাওয়া যায়নি।  

হেমােডায়ালাইসিস এর রােগীদের ক্ষেত্রে filmet এ থাকা মেট্রোনিডাজল এবং এর মেটাবােলাইট সমূহ ডায়ালাইসিসের ৮ ঘণ্টার মধ্যে শরীর থেকে বের হয়ে যায়। এই কারণে হেমােডায়ালাইসিস করার সাথে সাথেই পুনরায় মেট্রোনিডাজল দিতে হবে। 

শেষকথা

অধিক পরিমাণে filmet 400 সেবনের লক্ষনসমূহ হলো; বমি, অ্যাটাক্সিয়া, সামান্য বিভ্রান্তি বা হ্যালুসিনেশন। মেট্রোনিডাজোলের বিষক্রিয়ার কোনো প্রতিষেধক নাই। ঔষধটি অতিরিক্ত পরিমানে সেবন করলে উপস্বর্গিক এবং সহায়ক চিকিৎসা নিতে হবে।  

আপনার মনে কোন প্রশ্ন থাকলে এখানে ক্লিক করুন!

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top