নিউজিল্যান্ড সিরিজে বাংলাদেশ

তবে কি এই জয়ই টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ সাফল্য?

বাংলাদেশের টেস্ট ইতিহাস শুরু হয়েছে ২০০০ সালে। এখনও পর্যন্ত ১২৭ টা টেস্ট ম্যাচ খেলে জয়ের মুখ দেখেছে মাত্র ১৬ টা ম্যাচ যার অর্ধেকই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে । এছাড়াও শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান , অস্ট্রেলিয়ার সাথেও জিতেছে এক ম্যাচ করে। পরিসংখ্যান দেখে খুব সহজেই বলা যায় বাংলাদেশ টিমের টেস্ট ম্যাচ নিয়ে অর্জন খুব বেশী না। 

বাংলাদেশ সর্বশেষ টেস্ট জিতেছে গত বছর জুলাইতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে, তারপর পাকিস্তানের সাথে দুইটা টেস্ট খেলে একটাতেও জয়ের মুখ দেখেনি। তাই কিউদের বিরুদ্ধে জয়ের আশা খুব কমই ছিল টাইগারদের, তার উপরে কিউদের হোম গ্রাউন্ড। 

কিন্তু ২০১৭ সালের হারের প্রতিশোধ তো নিতেই হবে!  সেরকম প্রস্তুতি নিয়েই মাঠে নামে টাইগাররা। এবং আশাহতও হতে হয়নি বাংলাদেশকে। মাউন্ট মাঙ্গানুইয়ের বে ওভালে ইতিহাস গড়লো টাইটাররা। প্রথম ইনিংসে ১৩০ রানের লিড আর নিউজিল্যান্ডকে দ্বিতীয় ইনিংসে ১৬৯ রানে সাজঘরে পাঠিয়ে দেয়। এতে বাংলাদেশের লক্ষ্য দাঁড়ায় মাত্র ৪০ রান! 

মাত্র দুই উইকেট হারিয়েই লক্ষে পৌঁছে যায় মুমিনুলরা। শেষ দিনে বাংলাদেশের দরকার ছিল মাত্র ৫ উইকেট! এই উইকেট নিতে সময় নেয় মাত্র ১০ ওভারের একটু বেশী। এবাদত ও তাসকিনের ঝড়ে বেশীদূর যেতে পারেনি কিউরা। 

প্রথম ইনিংসে ৩২৮ রানের জবাবে ৪৫৮ রান করে বাংলাদেশ। এতে ১৩০ রানের লিড পায় বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ১৬৯ রান করে গুটিয়ে যায় নিউজিল্যান্ড। ৪০ রান করে পূরন করে অধরা জয় ছিনিয়ে নেয় টাইগাররা। 

এর ফলে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে তো বটেই, বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপেও প্রথম জয় পেল বাংলাদেশ। এশিয়ার বাইরে এই প্রথম জয় টাইগারদের। 

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন নিউজিল্যান্ড। অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ডের মতো দেশকে টেক্কা দিয়ে টেস্টের মুকুট জিততে হয় তাদের। ঘরের মাঠে বা বাইরের মাঠে সকল জায়গাতেই বিপক্ষ টিমকে নাকানি-চুবানি খাওয়ানোর সক্ষমতা রাখে তারা। ঘরের মাঠে সর্বশেষ ২০১৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে হেরেছে তারা। 

ক্রিকেটের আরও খবর জানুন

এরমধ্যে আর কেউ হারাতে পারেনি। আর এশিয়ার কোন দেশের কথা ধরলে ১১ বছর পরে নিজের মাটিতে কোন এশীয় দেশের সাথে হারলো নিউজিল্যান্ড। 

ম্যাচসেরা হয়েছেন এবাদত হোসেন। প্রথম ইনিংসে ৪ উইকেট নেন। দ্বিতীয় ইনিংসেও তার ধার কমেনা!  মাত্র ৪৬ রান দিয়ে শিকার করেন ৬ উইকেট। টেস্টে দেশের বাইরে সেরা বোলিং রেকর্ড করে ম্যাচ সেরা পুরস্কার জিতে নেয় এবাদত। 

টাইগারদের জয়ের পর বিশ্ব মিডিয়ায় তোলপাড় চলছে! অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড ও ভারত সহ বিভিন্ন দেশের গণমাধ্যমের ওয়েবসাইটে টাইগারদের প্রসংশা চলছে। ক্রিকেট পোর্টাল ক্রিকবাজ লিখেছে, “ইবাদত জ্বলে ওঠায় নবযুগের সৃষ্টি হলো বাংলাদেশের।”

নিউজিল্যান্ডে আর একটি টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ। যা অনুষ্ঠিত হবে ৯ই জানুয়ারিতে। 

নিউজিল্যান্ড সিরিজে বাংলাদেশ একাদশঃ

১। মোহাম্মদ নাঈম

২। মুমিনুল হল (C) 

৩। নাজমুল হোসেন শান্ত 

৪। সাদমান ইসলাম

৫। ইয়াসির আলী

৬। ফাজলে মাহামুদ 

৭। মেহেদী হাসান 

৮। লিটন দাস 

৯। মুশফিকুর রহিম 

১০। নুরুল হাসান

১১। আবু জায়েদ

১২। এবাদত হোসেন 

১৩। খালেদ আহমেদ

১৪। শরিফুল ইসলাম

১৫। তাইজুল ইসলাম

১৬। তাসকিন আহমেদ 

এই টেস্টে সিরিজের পর একমাস রেস্ট নিয়েই আবারও টাইগাররা উড়বে সাউথ আফ্রিকার উদ্দেশ্যে। সেখানে খেলবে ৩ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। তারপর আবারও টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ খেলার জন্য ওয়েস্ট ইন্ডিজ যাবে টাইগাররা। 

শেয়ার করুন-

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top