বহুমূত্র রোগ কি

বহুমূত্র রোগ কি, কেন হয় এর লক্ষণ ও চিকিৎসা জেনে নিন!

crickex banner ad

বহুমূত্র রোগ কি এই নিয়ে অনেক মানুষ অনেক মতামত দিয়ে থাকেন। একে ডায়াবেটিসও বলা হয় যা একটি হরমোন জনিত রোগ। দেহে অগ্ন্যাশয় যদি যথেষ্ট ইনসুলিন তৈরি করতে না পারে তাহলে এই রোগ দেখা দেয়।

চলুন জেনে নেওয়া যাক বহুমূত্র রোগ সম্পর্কে আরো অজানা কিছু তথ্য। 

বহুমূত্র রোগ কি

শরীর যদি উৎপন্ন ইনসুলিন ঠিকভাবে ব্যবহারে ব্যর্থ হয়, তাহলে বহুমূত্র বা ডায়াবেটিস রোগ দেখা দেয়। এটি কোনো সংক্রামক বা ছোঁয়াচে রোগ নয়। 

অগ্ন্যাশয় থেকে নিঃসৃত ইনসুলিন হরমোনের সহায়তায় দেহের রক্ত থেকে গ্লুকোজ নিতে সমর্থ হয় এবং শক্তিতে রূপান্তর করে। ইনসুলিনের কাজ করার ক্ষমতা যদি ঠিকভাবে না হয়, তখন রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বেড়ে যায় এবং তা প্রস্রাবের সাথে বেরিয়ে আসে। এর ফলে দেহের শক্তি ক্ষমতা কমে যায়। 

বহুমূত্র রোগের কারণ 

যে কেউ যেকোনো সময় ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হতে পারেন। তবে সাধারণত বয়স্কদের এই রোগ সম্ভাবনা বেশি থাকে।

চলুন দেখে নেওয়া যাক বহুমূত্র রোগের মূল কারণ সমূহ:

১. যাদের বংশানুক্রমে ডায়াবেটিস আছে। তাদের এই রোগ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

২. যাদের ওজন বেশি এবং ব্যায়াম বা শারীরিক পরিশ্রম করেন না তারা অধিকাংশই বহুমূত্র রোগে আক্রান্ত হোন। 

৩. যারা কর্টিসোল জাতীয় ঔষুধ ব্যবহার করেন, তাদের এই রোগ দেখা দিতে পারে।

৪. উচ্চরক্তচাপ আছে এবং রক্তে কোলেস্টেরল বেশি এমন ব্যক্তি ডায়বেটিসে বেশি আক্রান্ত হোন। 

৫. যারা অত্যধিক মানসিক চাপ ও অতিরিক্ত কাজের চাপে থাকেন তারাও অনেকসময় বহুমূত্র রোগের কবলে পড়েন। 

৬. এছাড়াও আমাদের দৈনন্দিন পরিশ্রমের পর পর্যাপ্ত ঘুম না হলে বহুমূত্র রোগ দেখা দিতে পারে৷ 

বহুমূত্র রোগের লক্ষণ

বাংলাদেশর বহু মানুষ নিজের অজান্তেই বহুমূত্র রোগ এর শিকার হোন। এটি একটি দীর্ঘস্থায়ী রোগ। কিছু কিছু লক্ষণ এর দ্বারা এ রোগ চিহ্নিত করা সম্ভব। ডায়াবেটিস হলে কি করণীয়, ডায়াবেটিস কমানোর উপায় জেনে নিন!

বহুমূত্র রোগ এর লক্ষণসমূহ ক্রমান্বয়ে নীচে আলোচনা করা হলো। 

  • প্রস্রাব খুব ঘন ঘন হওয়া।
  • খুব বেশি পানি পিপাসা লাগা।
  • অল্পতেই শরীরে ক্লান্তি এবং দুর্বল হয়ে যাওয়া।
  • যেকোনো ধরনের ক্ষত শুকাতে সময় নেওয়া। 
  • বিভিন্ন রকম চর্মরোগ দেখা দেওয়া।
  • দৃষ্টিশক্তি কমে যাওয়া।
  • জিভ শুকিয়ে যাওয়া।

বহুমূত্র রোগ এর চিকিৎসা  

বহুমূত্র রোগের প্রধান চিকিৎসা হলো নিয়মিত খাদ্যভ্যাস এবং প্রয়োজনীয় ঔষধ সেবন। বহুমূত্র রোগের অন্যতম ঔষধ হলো ইনসুলিন। এটি বাজারে কিনতে পাওয়া যায়। 

তবে ইনসুলিন নেয়ার ফলে যদি শর্করার পরিমাণ খুব কমে যায় তাহলে শরীরে বেশ কিছু প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। যেমন: বুক ধড়ফড় করা, শরীর কাঁপতে থাকা, অস্বাভাবিক আচার-আচরণ ইত্যাদি। 

এমনটা হলে রোগীকে চা-চামচের ৪ থেকে ৮ চামচ চিনি এক গ্লাস পানিতে গুলে খাইয়ে দিতে হবে অথবা গ্লুকোজ ইনজেকশন দিতে হবে। এবং অবস্থা বেশি খারাপ হলে অবশ্যই দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে। টাইপ ২ ডায়াবেটিস কি? প্রকৃতি, লক্ষণ ও নিরাময় জানুন!

বহুমূত্র রোগীর খাবার

বহুমূত্র রোগীর জন্য শর্করা জাতীয় খাবার অত্যন্ত ক্ষতিকর। কারণ এটি রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। তাই শর্করা জাতীয় খাবার না খাওয়াই ভালো। 

চলুন দেখে নেই বহুমূত্র রোগীদের যেসব খাবার খাওয়া প্রয়োজন:

  • গমের আটার রুটি। 
  • ফ্যাট ছাড়া দুধ বা স্কিম মিল্ক।
  • মুরগী অথবা হাঁসের ডিম।
  • সবুজ শাক সবজি, যেমন- লালশাক, পালংশাক, পুইশাক, লাউ, ফুলকপি, বাঁধাকপি ইত্যাদি। 
  • সিজনাল ফল, যেমন- আপেল,জাম্বুরা, আমড়া, পেয়ারা, কামরাঙা, আমলকী ইত্যাদি। 
  • বাদাম, বুট এবং কলাই জাতীয় খাদ্য।  
  • নুডলস এবং নোনতা জাতীয় বিস্কুট।

ভিডিওঃ ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করবে ঢেঁড়স।

শেষকথা

বহুমূত্র রোগটি সম্পূর্ণভাবে নিরাময় করা সম্ভব না। তবে সচেতন ও সুচিকিৎসার মাধ্যমে এ রোগকে নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। উপরোক্ত তথ্যের ভিত্তিতে বহুমূত্র রোগ কি এবং কেন হয় আশাকরি তা জানতে পেরেছেন। আশা করি বহুমূত্র রোগ নিয়ন্ত্রণে আপনিও সফল হবেন। 

আপনার মনে কোন প্রশ্ন থাকলে এখানে করুন!

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top