খেজুরের গুড়

খেজুরের গুড় এর স্বাস্থ্য উপকারিতা ও খাঁটি গুড় চেনার উপায়!

crickex banner ad

শীত আসতেই শুরু হয় পিঠা পায়েসের আয়োজন। আর সেই পায়েসে যদি থাকে খেজুরের গুড়, তাহলে তো কথায় নেই। খেজুরের গুড় দিয়ে বানানো পিঠাপুলির স্বাদ যেন দ্বিগুণ বেড়ে যায়। 

খেজুরের গুড় এর স্বাস্থ্য উপকারিতা ও খাঁটি গুড় চেনার উপায় ভিডিও তে দেখতে এখানে ক্লিক করুন!

মূলত খেজুরের গুড়ের আগমনও হয় শীতে। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই থাকে ভেজাল। আসল খেজুরের গুড় চিনতে কিছু বিষয় জানা চাই। পাঠক আজকের প্রবন্ধ থেকে জেনে নিন খেজুরের গুড়ের যত কথা। 

খেজুরের গুড় : ৫টি স্বাস্থ্য উপকারিতা

খেজুরের গুড়ের বানানো পিঠা শুধু স্বাদেই নয় গুণেও এর কার্যকারিতা আছে। কেননা খেজুরের গুড় আমাদের শরীরে নানাবিধ উপকারে আসে। তাই শীত উপলক্ষে যতটা পারেন নির্দ্বিধায় খেতে পারেন শীতের পিঠা। 

হজমে সহায়ক 

আপনার যদি হজমে সমস্যা থাকে, তবে খেজুরের গুড় খেলে সেই সমস্যা দূর হবে। তাই খাওয়ার পর একটু করে খেজুরের গুড় খেতে পারেন। 

আয়রণের ঘাটতি 

শরীরে আয়রনের ঘাটতি থাকলেও তা খেজুরের গুড়ের মাধ্যম দূর হয়। কেননা খেজুরের গুড় আয়রনের একটি ভালো উৎস। তাই, আয়রনের ঘাটতি দূর করতে প্রতিদিন অল্প পরিমাণে খেজুরের গুড় খেতে পারেন। 

হরমোনের সমতা

প্রিমেনস্ট্রুয়াল সিনড্রোমের সমস্যায় অনেকেই ভোগেন। খেজুরের গুড় হরমোনের সমতা বজায় রাখে ফলে এই সমস্যা দূর হয়। এছাড়া হরমোন বৃদ্ধিতেও খেজুরের গুড় সহায়ক। 

শারীরিক তাপমাত্রার ভারসাম্য 

গুড় একটি কার্বোহাইড্রেড জাতীয় খাবার। চিনিও তাই। তবে চিনি খেলে যে এনার্জি পাওয়া যায় তা রক্তে সুগারের মাত্রা বাড়িয়ে দিয়ে শরীরের ক্ষতি করে। খেজুরের গুড়ের ক্ষেত্রে তা হয় না। তাই খেজুরের খাওয়া নিঃসন্দেহে উপকারি। 

খেজুরের গুড় দিয়ে বানানো পিঠা

নানা পিঠাপুলি খেজুরের গুড় দিয়ে বানানো যায়। তাই শীত আসলে খেজুরের গুড়ের কদরও যায় বেড়ে। নীম্নে বর্ণিত পিঠাপুলি আপনি খেজুরের গুড় দিয়ে বানাতে পারেনঃ  

  • খেজুরের গুড়ের পায়েস। 
  • খেজুরের গুড়ের তেলের পিঠা। 
  • দুধ-চিতই পিঠা খেজুরের গুড়ের। 
  • খেজুরের গুড়ের পাটিসাপটা। 

আসল খেজুরের গুড় কীভাবে চিনবেন?

নিম্নোক্ত ৫টি বিষয় জানা থাকলে আপনি সহজেই খাটি খেজুরের গুড় চিনতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনাকে আর কোনো দোকানি ঠকাতে পারবে না। জেনে নিন বিষয়গুলি কী কী। 

রঙ

বলা হয়, প্রথমে দর্শনধারী তারপর গুণবিচারি। খেজুরের গুড়ের ক্ষেত্রেও তাই। তাই কেনার সময় অবশ্যই খেয়াল করবেন এটি কী রঙের। 

খাটি খেজুরের গুড়ের রঙ হয় গাঢ় বাদামি। যদি এতে হলদেটে ভাব থাকে তাহলে বুঝবেন রাসায়নিক কিছু মেশানো হয়েছে। 

শক্তভাব

খেজুরের গুড় যত শক্ত তত খাটি। তাই কেনার সময় অবশ্যই টিপে দেখে নিবেন। খেজুরের গুড় শক্ত হলে এতে তেমন কিছু মেশানো যায় না। 

নোনতা স্বাদ

গুড় কেনার সময় চেখেও দেখতে পারেন। এতে নোনতা স্বাদ বুঝবেন এতে কিছু মেশানো রয়েছে অথবা পুরোনো। পুরোনো খেজুরের গুড়ের স্বাদ হয় নোনতা। 

স্বাদে তেতো

স্বাদে তেতোভাব থাকলেও বুঝতে হবে এটি খাটি নয়। অতিরিক্ত শর্করা মেশালে গুড়ের স্বাদ তেতো হয়ে যায়। 

স্ফটিক

স্ফটিকের মতো অংশ থাকলে গুড়টি কেনা উচিত নয়। কেননা গুড়ে অতিরিক্ত মিষ্টি মেশালে এতে স্ফটিকের মতো অংশ দেখা যায়। 

পরিশেষ

খেজুরের গুড় অতি উপাদেয় খাদ্যগুলির মধ্যে একটি। তবে সবসময় এই খাদ্যটি আমাদের খাওয়া হয় না। তাই শীত উপলক্ষে বেশি বেশি খেতে পারেন খেজুর গুড় দিয়ে বানানো পিঠা পায়েস।

পুষ্টিকর খাবার নিয়ে আরও পড়ুন…

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top